ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG

বেরোবি প্রতিনিধি:

২৮ জানুয়ারি ২০১৯, ১৯:০১

বেরোবিতে সাক্ষাৎকার দিতে এসে আটক আরও দুই শিক্ষার্থী

10747_আটক.jpg
বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক ১ম বর্ষ ভর্তি পরীক্ষার ১ম অপেক্ষামান তালিকার সাক্ষাৎকার গ্রহণের সময় দুই ভুয়া পরীক্ষার্থীকে আটক করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। । এর আগে গত ৯ জানুয়ারি সাক্ষাৎকার এবং ১০ জানুয়ারি ভর্তি হতে এসে দুইদিনে মোট ১৩ শিক্ষার্থী আটক হয়। আটককৃতরা সকলেই মেধা তালিকার শীর্ষে ছিল।এই দুইজনসহ মোট ১৫ জন শিক্ষার্থী ভর্তি প্রক্রিয়ায় অসাধুপায় অবলম্বনের দায়ে আটক হলো

আটককৃতরা হলেন, বিজ্ঞান অনুষদে সাক্ষাৎকার দিতে আসা কিশোরগঞ্জ কটিয়াদির পশ্চিম চাতলের রুপক দেবনাথ ও এফ ইউনিটের সাক্ষাতকার দিতে আসা রংপুর নগরীর চক বাজার এলাকার সিরাজ উদ্দীনের পুত্র রকিব হাসান।

গত রবিবার সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত সাক্ষাতকার চলাকালে এই দুই পরীক্ষার্থীকে আটক করা হয়। আটককৃতদের তাজহাট থানায় সোপর্দ করেছে বিশ্ববিদ্যালয়  প্রশাসন।
প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের ১ম বর্ষ ভর্তি পরীক্ষার ১ম অপেক্ষামান তালিকার ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের সাক্ষাৎকার নেওয়ার সময় বিজ্ঞান অনুষদে সাক্ষাৎকার দিতে আসা কিশোরগঞ্জ কটিয়াদির পশ্চিম চাতলের রুপক দেবনাথের হাতের লেখার সাথে পরীক্ষার খাতার কোন মিল না থাকায় তাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় তার পরিবর্তে অন্য কেউ পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। তাই ওই পরিক্ষার্থীর সাক্ষাৎকার বাতিল করে তাকে রবিবার বিকেলে পুলিশের হাতে সোপর্দ করা হয়।

আর, অপর পরীক্ষার্থী রকিব হাসান এফ ইউনিটে সাক্ষাতকার দিতে আসলে তাকেও সন্দেহ করেন দায়িত্বরত শিক্ষকগণ। পরে তার বিভিন্ন পরীক্ষা নেয়া হয়। এতেও বেশ অমিল পরিলক্ষিত হয়। এরপরও অপরাধ স্বীকার না করায় তাকে রবিবার সন্ধ্যায় থানা হেফাজতে পাঠানো হয়।

পরে, বিষয়টির সুষ্ঠু তদন্তের দাবিতে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করে ছাত্রলীগ। তাদের দাবির প্রেক্ষিতে সোমবার ওই শিক্ষার্থীর জন্য বিশেষ বোর্ড গঠন করে পুনরায় তার সাক্ষাতকার নেয়া হয়। এতে, তার ছবি, হাতের লেখা ও কথাবার্তা অসংলগ্ন হওয়ায় দুপুরে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়।

এবিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি তুষার কিবরিয়া বলেন, ওই শিক্ষার্থী অভিযোগ করেছিল যে তার কাছ থেকে জোরপূর্বক অনিয়ম করার বিষয়টি লিখে নেয়া হয়েছে। তাই আমরা পুনরায় বোর্ড গঠনের দাবি জানিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সে দাবি মেনে ওই শিক্ষার্থীর সাক্ষাতকার নিয়েছে। এতে, তার জালিয়াতির বিষয়টি প্রমাণ হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর ড. আবু কালাম মো. উরিদ উল ইসলাম বলেন, অপেক্ষামান তালিকার সাক্ষাতকার দিতে আসা দুই শিক্ষার্থীকে অনৈতিক পন্থা অবলম্বনের দায়ে আটক করা হয়েছে। যাছাই-বাছাই করে দেখা গেছে যে তারা অনিয়মের মাধ্যমে ভর্তি হতে চেয়েছিল। তাদের ভর্তি প্রক্রিয়া বাতিল করে একজনকে রবিবার বিকেলে এবং আরেকজনকে সোমবার দুপুরে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়েছে।