ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

এনএনবিডি, ঢাকা:

৩০ জানুয়ারি ২০১৯, ২২:০১

সংসদে অবস্থান নিয়ে বিব্রত ওয়ার্কার্স পার্টি

10821_download (1).jpg
জাতীয় সংসদে নিজের দলের অবস্থান কী, তা নিয়ে বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন। বুধবার একাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনের প্রথম বৈঠকে মেনন নিজেই এ কথা বলেছেন।

দশম সংসদের মতো ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিক হিসেবে এবারও সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয় ওয়ার্কার্স পার্টি। গত সরকারে রাশেদ খান মেনন সরকারের অংশ ছিলেন। আরেক শরিক জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনুও মন্ত্রিত্ব পেয়েছিলেন। কিন্তু এবার জোটের শরিকদের কাউকে মন্ত্রিসভায় রাখেননি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই অবস্থায় সংসদে ১৪ দলের শরিকদের অবস্থান কী হবে, তারা কি বিরোধী দল নাকি সরকারি দল, তা স্পষ্ট হয়নি।

বুধবার নবনির্বাচিত স্পিকারকে স্বাগত জানিয়ে বক্তব্য দিতে গিয়ে রাশেদ খান মেনন নিজেও সেই প্রশ্ন তুলেছেন। তিনি বলেন, ‘একাদশ জাতীয় সংসদ নিয়ে আমরা আনন্দিত। তবে এই আনন্দের সঙ্গে সঙ্গে আমরা একটু বিব্রতও বটে। আজকে ঢোকার মুখেও (সংসদে প্রবেশের সময়) আমাকে প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়েছে। জানতে চাওয়া হয়েছে, আপনাদের সংসদে অবস্থান কী হবে?’

সাবেক সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী তাঁর দলের বৈঠকের মধ্যে একটি মন্তব্য করেছেন। আমি মনে করি প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্যটি অত্যন্ত যৌক্তিক। তিনি বলেছেন, “এই সংসদে সরকারি দল যেমনি মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের হবে, তেমনি বিরোধী দলও মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের হবে।” কিন্তু বিষয়টিকে কেন্দ্র করে শেষ পর্যন্ত যেটা দাঁড়িয়ে গেছে...। আমাদের বলা হচ্ছে আপনারা কেন বিরোধী দলে গিয়ে বসছেন না। বিষয়টি নিয়ে তো আমাদের কেউ জিজ্ঞাসা করবে, প্রশ্ন করবে বা আলোচনা করবে কিন্তু তা হয়নি। মনে হয় এই সিদ্ধান্ত যেন আমাদের ওপর। মনে হচ্ছে সিদ্ধান্ত মেনে চলতে হবে।’

ওয়ার্কার্স পার্টির এই নেতা বলেন, তাঁরা সরকারের সব উন্নয়নকাজের প্রশংসা করবেন। একই সঙ্গে ত্রুটিবিচ্যুতি যা থাকবে, তার বিরোধিতা করবেন। দশম সংসদেও তাঁরা তা করেছেন। ওয়ার্কার্স পার্টি উন্নয়নমূলক কাজ ও অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক পথে দেশকে এগিয়ে নেওয়ার প্রশ্নে প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগের প্রতি তাঁদের যেমন সমর্থন থাকবে, তেমনি দুর্নীতি ও বৈষম্যের প্রশ্নে যেকোনো ব্যত্যয় হলে বা সরকারি কাজে কোনো বিরোধিতার বিষয় থাকলে অবশ্যই তার বিরোধিতার সুযোগ থাকলে তা তাঁরা করবেন।

মেনন বলেন, ‘জাতীয় পার্টি বিরোধী দল হিসেবে এখানে বসছে, অবশ্যই শক্তিশালী বিরোধী দল হিসেবে তারা অংশগ্রহণ করবে। আমরা সকলে মিলে একসঙ্গে এগিয়ে যাব। এ ক্ষেত্রে স্পিকারের সুদৃষ্টি বিশেষ প্রয়োজন।’