ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG

এনএন বিডি, ঢাকা

১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৯:০২

যেখানে ঐক্যফ্রন্টের বিজয় দেখছেন রব

10868_385028_118.jpg
জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি জাতীয় পরিষদের সভার রাজনৈতিক প্রস্তাবে বলা হয়েছে, ভোট ডাকাতির মাধ্যমে সরকার নিজের প্রার্থীদের বিজয়ী ঘোষণা করেছে। গণ বিবেচনায় এ নির্বাচনে সরকারের চরম পরাজয় ও ঐক্যফ্রন্টের বিজয় সূচীত হয়েছে। এবারের ভোট ডাকাতির মাধ্যমে প্রমানিত হয়েছে দলীয় সরকারের অধীনে কোন ভাবেই অবাধ-সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়। এবারের নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের পক্ষে ব্যাপক জনমত প্রমাণ করেছে ঐক্যফ্রন্ট গঠনের উদ্যোগ নিয়ে জেএসডি সঠিক কাজ করেছে। বর্তমানে ঐক্যফ্রন্টকে আরো শক্তিশালী করার চেষ্টা করতে হবে।

শুক্রবার জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জাতীয় পরিষদ এর এ সভায় এসব বক্তব্য আসে। এতে আরো বক্তব্য রাখেন জেএসডি সাধারণ সম্পাদক জনাব আবদুল মালেক রতন, মিসেস তানিয়া রব, শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন, অ্যাড. সানোয়ার হোসেন তালুকদার, জনাব খোশ লেহাজ উদ্দিন খোকা, এ্যাড. আবদুর রহমান, গোলাম জিলানী চৌধুরী, এম এ আউয়াল, ওয়ালি আহমেদ পাটোয়ারী, আবদুল জলিল চৌধুরী, সোহরাব হোসেন, সুলতান আহমেদ বাচ্চু, কামাল উদ্দিন পাটোয়ারী, এ্যাড. সৈয়দ বেলায়েত হোসেন বেলাল, মোশারফ হোসেন, আহসান উদ্দিন চৌধুরী সুইট, আবদুর রাজ্জাক রাজা, মতিয়ার রহমান মতি, এস এম রানা চৌধুরী, এ্যাড. গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, আবদুল্লা আল তারেক, সৈয়দা ফাতেমা হেনা, আমির উদ্দিন, কাজী আবদুস সাত্তার, আবদুল লতিফ খান, শফিউল আলম, অধ্যক্ষ আবদুল মোত্তালিব, নুর রহমান চেয়ারম্যান, আবুল কাশেম পাটোয়ারী, শাহাদাৎ হোসেন খোকন, শাহেদ কামাল টিটু, এ্যাড. নাজিম উদ্দিন শেখ, সৈয়দ বিপ্লব আজাদ, হাবিবুর রহমান মাস্টার, মোজাম্মেল হক প্রমুখ ।

শুক্রবার সকাল ১০ টায় দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত জাতীয় পরিষদ সভার প্রথম পর্বে এ রাজনৈতিক প্রস্তাব গৃহীত হয়।

সভায় আরো বলা হয়, সরকারের কর্তা ব্যক্তিরা যখন বলছেন, আগামী স্থানীয় সরকার নির্বাচনও ৩০ শে ডিসেম্বরের নির্বাচনের মত সুষ্ঠু হবে-তা থেকে এ কথাই প্রমানিত হয় যে, উপ নির্বাচন ও উপজেলা সহ সকল স্থানীয় সরকার নির্বাচনেই ভোট ডাকাতি হবে। এমতাবস্থায় জেএসডি আগামী উপজেলা নির্বাচন দলীয় ভাবে বর্জন করবে।

সভায় দলের সাংগঠনিক সম্পাদক লোকমান হাকিম সহ অবিলম্বে সকল রাজবন্দিদের মুক্তি এবং সকল ধরণের ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবী জানানো হয়। সভায় জেলা-উপজেলা সম্মেলন সমাপ্ত করে যথাসম্ভব স্বল্প সময়ের মধ্যে কেন্দ্রীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।