ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:০২

দুদককে মানুষ আর বিশ্বাস করছে না বিশ্লেষকদের অভিমত

11037_63.jpg
সম্প্রতি দুর্নীতিবাজদের লোভের জিহবা কেটে ফেলার হুমকি দিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। দুদকের প্রধান কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, এখন মানুষের আর অভাব নেই। লোভের কারণেই দুর্নীতি করে। আমরা লোভের জিহবা কেটে দিতে চাই। অলরেডি সেটা আমরা শুরু করেছি। দুর্নীতি করলে এখন ডেফেনিটলি শাস্তি হয়। তবে বিশ্লেষকরা বলছেন ভিন্ন কথা। বড় দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ না করে আসলে দুদক নাগরিকদের ধোঁকা দিচ্ছে বলে মনে করছেন তারা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুল বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশন যেসব কথা বলছে তা মানুষ বিশ্বাস করছে না। তারা যে অভিযান চালাচ্ছে তা লোক দেখানো। প্রাইমারি শিক্ষক স্কুলে এলো নাকি এলো না, কোন কর্মচারী কী করল, ডাক্তার কী করল এগুলো দেখার জন্য আরো বহু প্রতিষ্ঠান আছে। দুর্নীতি দমন কমিশন একটা দেশে তখনই প্রশংসিত হয় বা নাগরিকরা বিশ্বাস করে যখন দেখে যে, তারা ক্ষমতাসীন সরকারের বড় বড় দুর্নীতিবাজের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

বর্তমান সরকার ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় লক্ষ কোটি টাকা বিদেশে পাচার হওয়ার কথা, ব্যাংক, শেয়ারমার্কেট লুট হওয়ার কথা, বড় বড় প্রকল্পে দুর্নীতির কথা পত্রিকায় দেখি। এসব ক্ষেত্রে যদি দুদক কোনো পদক্ষেপ না নিয়ে বড় বড় বুলি ছাড়ে তাহলে মনে হবে দুদক আসলে মানুষকে ধোঁকা দিচ্ছে। দুদক সম্পর্কে এখনই অনেক কথা বলা হয়, কেউ কেউ বলে দুদকের কাজ হচ্ছে বিএনপির দুর্নীতি দমন কমিটি বা বিরোধী দল দমন কমিটি।

আমি মনে করি এখন দুদক যা করছে তা হচ্ছে, বিএনপিসহ ছোট ছোট দুর্নীতিবাজের দুর্নীতি সাড়ম্বরে প্রচার করছে। এর আড়ালে হাজার হাজার কোটি টাকার দুর্নীতি হচ্ছে, যে দুর্নীতি বাংলাদেশের ব্যাংকিং ব্যবস্থায় ধস নামিয়ে দিয়েছে, রাষ্ট্রের কোষাগারকে ধরে টান দিয়েছে, রাষ্ট্রের খরচ কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে সেসব দুর্নীতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে এসব কথা বলে কোনো লাভ নেই।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা এবং সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সভাপতি এম হাফিজ উদ্দীন খান বলেন, দুর্নীতি কারো একার পক্ষে দমন করা সম্ভব নয়। আরো অনেক এলিমেন্টস রয়েছে যেগুলো দুর্নীতিরোধের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। এ জন্য আমাদের আইনের সংস্কার, বিচার বিভাগের সংস্কার প্রয়োজন।

আমার ধারণা দুদক হয়তো দুর্নীতি দমনের জন্য চেষ্টা করে। কিন্তু কিছু সমস্যাতো তাদের থাকতে পারে। আমাদের দেশের রাজনৈতিক প্রভাব দুর্নীতি দমনে একটা বড় ফ্যাক্টর। সেটা দুদক কতটুকু ওভারকাম করতে পারে সেটা আমি বলতে পারব না।

ব্যাংক, শেয়ারবাজার দুর্নীতির ক্ষেত্রে দুদকের তেমন কোনো পদক্ষেপ আমরা দেখতে পাইনি। এমনকি সরকারই এ ক্ষেত্রে সহনশীল নীতি গ্রহণ করেছে। সরকার বাংলাদেশ ব্যাংককে এ ক্ষেত্রে কার্যকর করতে পারে। দুদকও শক্তিশালী ভূমিকা রাখতে পারে। ব্যাংকিং খাতের দুর্নীতি রুখতে সরকার এ ক্ষেত্রে একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে পারত। কিন্তু দুর্নীতি দমনে সরকার নাগরিকদের প্রত্যাশা পূরণ করতে পারছে না।

সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী ও সংবিধান বিশেষজ্ঞ অ্যাডভোকেট শাহদীন মালিক বলেন, স্কুল, কলেজ, হাসপাতালে সবাই হাজির হচ্ছে কি না এটা দেখা ন্যায়পালের কাজ। এটা দুর্নীতি দমন কমিশনের কাজ নয়। দেশে অনেক বড় বড় অনিয়ম, দুর্নীতি হচ্ছে সেখানে দুদকের কাজ করার সুযোগ রয়েছে। ব্যাংকগুলোতে সব লেনদেনের কাগজ থাকে। এটার দুর্নীতি বের করা কঠিন কাজ না। অর্থটি যেদিকে যাওয়ার কথা সেদিকে না গিয়ে অন্য দিকে যাচ্ছে। এটি বের করতে না পারা কতটা অদক্ষতা আর কতটা রাজনৈতিক চাল সেটা তারাই ভালো জানেন।