ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

৩১ মার্চ ২০১৯, ১১:০৩

মোদীর বিরুদ্ধে ‘যুদ্ধে’ বিদ্রোহী সেনা সদস্য!

11142_2.jpg
২০১৭ সালের কথা। সেসময় বিদ্রোহী এই বিএসএফ কর্মকর্তা পোস্টিং জম্মু-কাশ্মীরে। সেখানে দেশটির সরকার যে বিএসএফকে নিম্নমানের খাবার দেয়, তার একটা ভিডিও পোস্ট করে সামাজিক মাধ্যমে বেশ শোরগোল ফেলেছিলেন তিনি। যার জেরে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়ে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। আর এতেই কপাল পোড়ে সেই কর্মকর্তার বরখাস্ত হন তিনি।

এবার সেই ‘বিদ্রোহী সেনা সদস্য’ তেজ বাহাদুর যাদবই ভোটে দাঁড়াচ্ছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে। স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েই আসন্ন লোকসভা ভোটে উত্তরপ্রদেশের বারাণসী কেন্দ্র থেকে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সাবেক এই আধা সামরিক সদস্য।

এ ব্যাপারে তেজবাহাদুর জানিয়েছেন, এবারের ভোটে তার লড়াই মূলত দুর্নীতির বিরুদ্ধে। দুর্নীতি দেশের রন্ধ্রে রন্ধ্রে ঢুকে গেছে। আর ঠিক সেই কারণেই প্রধানমন্ত্রীর বিপক্ষে দাঁড়িয়ে মানুষের নজর সে দিকে ঘোরাতে চান তিনি। দেশবাসীকে এই লড়াইয়ে শামিল হওয়ারও ডাক দিলেন তেজ বাহাদুর।
তার কথায়, “মোদীজির মনোভাব অনেকটা যেন— ‘না নিজে খাব, না অন্যকে খেতে দেব’। তিনি আগের ভোটে দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের কথা বলেছিলেন। আর আমি যখন খাবারের মান নিয়ে প্রশ্ন তুলে সেই কাজটা করলাম, উল্টো আমাকেই বরখাস্ত করা হল! তাও কিনা কর্তব্যে গাফিলতির মিথ্যা অভিযোগে।”

সাবেক এই সেনা সদস্যের বাড়ি হরিয়ানার রেওয়ারিতে। সেখান থেকে ভোটে না লড়ে মোদীর কেন্দ্র থেকে ভোটে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত তিনি যথেষ্ট ভেবেচিন্তেই নিয়েছেন বলে দাবি তেজ বাহাদুরের। এমনকি জানালেন, অন্য দল থেকে তাকে টিকিট দেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হলেও তিনি তা সচেতনভাবেই এড়িয়ে গেছেন।

তেজ জানান, চাকরি থেকে বরখাস্ত হওয়ার পর এখন কোনোমতে চাষের কাজ করে সংসার চলে। তার ক্ষোভ, দেশের চাষিরা যেখানে না-খেতে পেয়ে মরছেন, সেখানে প্রধানমন্ত্রী সেনা-সদস্যদের নিয়ে রাজনীতি করে বেড়াচ্ছেন। তার প্রশ্ন, “পুলওয়ামার পরে পাকিস্তানকে জবাব দেওয়া হোক কিংবা অভিনন্দন বর্তমানকে দেশে ফিরিয়ে আনা—সবটাই তো করেছে সেনা। প্রধানমন্ত্রী কেন কৃতিত্ব দাবি করছেন?”

বারাণসী থেকে মোদীর বিরুদ্ধে ভাল অঙ্কের ভোট পাওয়ার বিষয়ে তিনি আশাবাদী। যদিও জানালেন, হার-জিত নিয়ে একেবারেই ভাবছেন না।   

তিনি বলেন, “দেশের গরিব মানুষ থেকে, চাষি, জওয়ান— সকলেই বঞ্চিত। মানুষকে এর বিরুদ্ধে সচেতন করার জন্যই আমার ভোটে দাঁড়ানো।”

শিগগিরই বারাণসীর সাবেক সেনাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে মোদীর বিরুদ্ধে প্রচারে নামবেন তেজ। জানিয়েছেন, সেখানে যেমন গরীবের খেতে না-পাওয়ার বিষয়টি থাকবে, বিএসএফ বা সেনায় যোগ দেওয়া সদস্যদের পরিবারের অসহায়তার বিষয়টিও সামনে আনবেন তিনি। তেজের আশা, দেশের সামরিক বাহিনী সদস্যরা মোদী নন, দুর্নীতির বিরুদ্ধের তার এই লড়াইয়ে পাশেই থাকবেন তারা।
সূত্র: আনন্দবাজার