ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৬ এপ্রিল ২০১৯, ১০:০৪

প্যারিসের ৮৫০ বছরের পুরোনো গির্জায় আগুন

11296_403251_141.jpg
প্যারিসের বিখ্যাত নটর ডেম গির্জায় ভয়াবহ আগুন। সোমবার ফ্রান্সের স্থানীয় সময় দুপুরে আগুন লাগে বলে জানা গেছে। প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, আগুন লাগার সঙ্গে সঙ্গেই গোটা এলাকায় কালো ধোঁয়ায় ঢেকে যায়। দমকল কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণ আনার জন্য এখনো চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। আগুনে গির্জার কিছু অংশ শেষ হয়ে গেছে। তবে মূল অংশটি অক্ষত আছে বলে জানা গেছে।

নটর ডেম গির্জা প্যারিসের প্রাচীন গির্জাগুলোর মধ্যে অন্যতম। এটি ফ্রান্সের অন্যতম প্রতীক। সেখানে বছরভর লাখ লাখ মানুষ হাজির হন। কেউ যান প্রার্থনা করতে। কেউ আবার শুধু দর্শনের জন্যই সেখানে যান। তবে বর্তমানে সেখানে সংরক্ষণের কাজ চলছিল।

তারই মধ্যে সোমবার দুপুরে আগুন লাগে। সঙ্গে সঙ্গে আগুন নেভানোর তত্পরতা শুরু হয়। ঘটনাস্থলে দমকলের একাধিক গাড়ি পৌঁছে যায়। কিন্তু ততক্ষণে ওই গির্জা দাউ দাউ করে জ্বলতে শুরু করেছে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশও। পুলিশের পক্ষ থেকে ট্যুইটও করা হয়। সাধারণ মানুষকে ওই এলাকা থেকে দূরে সরে যাওয়ার আবেদন জানানো হয়। ওই গির্জার পাশে যে সমস্ত বাড়ি ছিল, সেখান থেকেও দ্রুত বাসিন্দাদের সরিয়ে দেয়া হয়।

কীভাবে আগুন লাগল, তা এখনো জানা যায়নি। তবে গোটা বিষয়টি দুর্ঘটনা বলেই মনে করছেন দমকল ও পুলিশের কর্মকর্তারা। এদিকে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা যায়নি বলে জানা গেছে।

১৮৩১ সালের ১৬ মার্চ যখন বিখ্যাত ফরাসি ঔপন্যাসিক ভিক্টর হুগোর নতুন উপন্যাস ‘হাঞ্চব্যাক অব নতরদাম' প্রকাশিত হচ্ছে, সেই সময় প্যারিসের বিখ্যাত নটর ডেম গির্জার সৃষ্টি। গির্জা বানানোর জন্য একদম প্রথম পাথরটি স্থাপন করার সময়টি নিয়ে ধরলে পাক্কা ৬৬৮ বছর। ১৩৪৫ সালে এই গির্জা বানানোর কাজটি সমাপ্ত হয়। যা বানানোর প্রক্রিয়াটি শুরু হয়েছিল, তার ১০০ বছরেরও বেশি সময় আগে। রাজা লুই-এর আমলে। ১১৬৩ খ্রিস্টাব্দে। ১০০ বছরের বেশি সময় ধরে বানানো এই বিশাল ঐতিহ্যমণ্ডিত গির্জাটি প্রকৃত অর্থেই পৃথিবীর স্থাপত্যের ইতিহাসের এক অনিবার্য দলিল শতকের পর শতক ধরে বহু বিপদের সম্মুখীন হয়েছিল ৬৯ মিটার বা ২২৬ ফুট উচ্চতার এই গির্জা। ফরাসি বিপ্লবের সময় ১৭৯০ সাল নাগাদ এই গির্জার ভিতরে থাকা বহু স্থাপত্য ও চারুকলা একেবারে ধ্বংস করে দেয়া হয়। ‘হাঞ্চব্যাক অব নটর ডেম' প্রকাশিত হওয়ার পর মধ্যযুগে স্থাপিত এই ক্যাথলিক গির্জাটি সম্বন্ধে সাধারণ মানুষও ক্রমশ আগ্রহান্বিত হয়ে উঠতে থাকেন।

এই ক্যাথলিক গির্জাটি বর্তমানে প্যারিসের আর্চবিশপ বা মহাবিশপের অধীনে রয়েছে। গির্জাটি প্যারিস শহরের ৪র্থ আরোঁদিসমঁ বা ওয়ার্ডে, শিন নদীতে অবস্থিত ইল দ্য লা সিতে নামক দ্বীপের পূর্ব পাশে অবস্থিত। গির্জাটির পশ্চিমমুখী অংশটির সামনে রয়েছে উন্মুক্ত জঁ-পল চত্বর।

গগনস্পর্শী উচ্চতা ও নান্দনিক স্থাপত্যশৈলীর জন্য নোত্র্‌-দাম গির্জাটি পর্যটকদের কাছে বিশেষভাবে আকর্ষণীয়। এটি প্যারিস নগরী, ফ্রান্স, এমনকি সমগ্র ইউরোপের পর্যটকদের কাছে সর্বাধিক জনপ্রিয় ক্যাথেড্রাল। প্রতি বছর ২ কোটি লোক এটি দেখতে আসে এবং প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ পর্যটক গির্জার অভ্যন্তরে প্রবেশ করে। এ গির্জায় প্রবেশের জন্য পর্যটকদের কোনো অর্থ প্রদান করতে হয় না।

দীর্ঘকাল প্যারিসের সবচেয়ে উঁচু ভবন হিসেবে নোতর দাম গির্জা প্রসিদ্ধ ছিল। ১৮৩১ সালে এটি প্যারিসের সবচেয়ে উঁচু ভবন ছিল ভিক্টর হুগোর উপন্যাস নটর ডেম প্যারিসে ভবনটিকে কেন্দ্রীয় ভূমিকা দেয়া হয়েছে। অভিষেককালে ফ্রান্সের রাজা ও সম্রাটদের এই গির্জাতেই শপথ পড়ানো হতো। আধুনিক ফ্রান্সের অনেক রাষ্ট্রপতির যেমন শার্ল দ্য গল, জর্জ পোঁপিদু, ফ্রঁসোয়া মিতেরঁ প্রমুখের শেষকৃত্য এই গির্জাতেই অনুষ্ঠিত হয়।