ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

স্টাফ রিপোর্টার:

৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১২:০২

জনপ্রিয় হচ্ছে এজেন্ট ব্যাংকিং

1164_agent-babking.jpg

গ্রামীন অর্থনীতির চাকা সচল করতে ২০১৩ সালে যাত্রা শুরু হওয়া এজেন্ট ব্যাংকিং ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। বর্তমানে এর গ্রাহক সংখ্যা ১২ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। অথচ গত অর্থ বছরের ডিসেম্বর শেষে গাহক সংখ্যা ছিলো মাত্র ৫ লক্ষ ৪৪ হাজার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ প্রতিবেদনে দেখা যায়, গত তিন মাসে(অক্টোবর-ডিসেম্বর) এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে নতুন হিসাব খোলা হয় ১ লক্ষ ৭৬ হাজার। যা আগের তৈমাসিক থেকে ১৭ শতাংশ বেশি। এক্ষেত্রে নতুন গ্রাহক সবচেয়ে বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে ব্যাংক এশিয়ায়। এবং দ্বিতীয় অবস্থানে আছে ডাচ বাংলা ব্যাংক। এই দুই ব্যাংকের নতুন হিসাব খোলার পরিমাণ ১ লক্ষ ৪৫ হাজার। যা মোট বৃদ্ধি পাওয়া হিসেবের ৮২ শতাংশ। তবে সামগ্রিকভাবে সবচেয়ে বেশি হিসাব রয়েছে ডাচ বাংলা ব্যাংকের। তাদের বর্তমান হিসেবের সংখ্যা প্রায় ৭ লক্ষ ৫৪ হাজার। এছাড়াও এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে ভালো করছে আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক।

সাম্প্রতিক হিসেব মতে, এজেন্ট ব্যাংকিং কার্যক্রমে শহরের তুলনায় গ্রামাঞ্চলে খোলা ব্যাংক হিসাবের সংখ্যা প্রায় ০৬ গুণ। যা এজেন্ট ব্যাংকিং কার্যক্রমের মূল উদ্দেশ্যের সাথে সংগতিপূর্ণ। এছাড়াও এই কার্যক্রমে নারী হিসেবের সংখ্যা ৩ লক্ষ ৭৮ হাজার ৯ শ’ ৫১ হওয়ায় নারীদের অংশগ্রহণে সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

বর্তমানে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে আউটলেটের সংখ্যা ৪ হাজার ১শ ৫৭টি এবং এজেন্ট সংখ্যা ২ হাজার ৫শ ৭৭ টি। ১৪ টি ব্যাংকের মাধ্যমে খোলা এজেন্ট ব্যাংকিং হিসাবে সর্বমোট আমানতের পরিমাণ ১ হাজার ৩ শ ৯৯ কোটি ৩৮ লক্ষ টাকা । যা গত বছরের তুলনায় ২৬৭ দশমিক ৬ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়াও এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে বিতরণকৃত ঋনের পরিমাণ ১শ ৮ কোটি ৮৪ লক্ষ টাকা। এর মধ্যে ব্যাংক এশিয়া একাই বিতরণ করেছে ১শ ৩ কোটি ৬ লক্ষ টাকা।

অন্যদিকে এজেন্ট ব্যাংকিং রেমিটেন্স সেবায়ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। গত ডিসেম্বর ২০১৭ পর্যন্ত এজেন্ট ব্যাংকিং এর মাধ্যমে বিতরণকৃত রেমিট্যান্সের পরিমাণ হচ্ছে ১ হাজার ৯শ ৮২ কোটি ১ লক্ষ টাকা।

সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে আশাবাদ ব্যক্ত করে বলা হয়, জাতীয় অর্থনীতির তৃণমূল পর্যায়ে এজেন্ট ব্যাংকিং দ্রুত বিকাশ লাভ করছে। আগামী দিনে এজেন্ট ব্যাংকিং সমগ্র ব্যাংকিং খাত তথা দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে আমুল পরিবর্তন আনতে সক্ষম হবে।