ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৬:০২

খালেদা জিয়ার সাজার রায়ের প্রতিবাদে

রাজধানীসহ সারাদেশে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল, লাঠিচার্জ ও ধড়পাকড়

1184_16.jpg
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে রাজধানীতে বিক্ষোভ মিছিল
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সাজার প্রতিবাদে পূর্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে সারাদেশে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিএনপি। শুক্রবার বাদ জুমা কেন্দ্রীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেটের সামনে থেকে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়। মিছিলটি দৈনিক বাংলা-ফকিরাপুল-বিএনপি অফিস হয়ে নাইটিঙ্গেল মোড় পর্যন্ত আসে।
মিছিলটি বিএনপি অফিসের সামনে পৌঁছালে দলীয় কার্যালয়ের তৃতীয় তলা থেকে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী হাত নেড়ে স্বাগত জানান।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শান্তিপূর্ণ মিছিলটি নাইটিঙ্গেল মোড়ে পৌঁছালে কিছু নেতাকর্মী আবাসিক এলাকায় প্রবেশের চেষ্টা করে। তখন পুলিশ ধাওয়া দিয়ে সেখান থেকে কয়েকজনকে আটক করেছে।
এ ব্যাপারে মতিঝিল জোনের এডিসি শিবলি নোমান সাংবাদিকদের জানান, বিএনপি নেতাকর্মীরা শান্তিপূর্ণ মিছিল করছিল। কিন্তু কিছু নেতাকর্মী আবাসিক এলাকায় প্রবেশের চেষ্টা করলে তাদেরকে ধাওয়া দেয়া হয়।
এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কাউকে আটক করা হয়েছে কিনা তা খোঁজ নিয়ে পরে জানাতে পারব।
উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বৃহস্পতিবার পুরানো ঢাকার বকশীবাজারে স্থাপিক বিশেষ আদালতের বিচারক বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন। এছাড়া তার ছেলে ও দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ৫জনকে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়।
এই রায়ের প্রতিবাদে ওইদিন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে আজ বাদ জুমা দেশব্যাপী বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।
রাজধানী ছাড়াও দেশের বিভাগীয় ও জেলা শহরগুলোতে বিক্ষোভ মিছিল বের করে দলটির নেতাকর্মীরা। তবে কোথায় দলটির নেতা-কর্মীরা স্বাভাবিকভাবে প্রতিবাদ মিছিল করতে পারেনি। কোথাও অবরুদ্ধ বা পুলিশি বেষ্টনীতে কর্মসুচী পালন অথবা লাঠিচার্জ করে কর্মসুচী পন্ড করে দেয় প্রশাসন।

বগুড়ায় বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল, পুলিশের লাঠিচার্জ
বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারমান তারেক রহমানকে সাজা দেয়ার প্রতিক্রিয়ায় বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে বগুড়া জেলা বিএনপি। কর্মসূচি শুরুর আগে পুলিশের লাঠিচার্জে কমপক্ষে ১০জন আহত হয়েছেন।
কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে শুক্রবার সকালে দলীয় কার্যালয় কাঁটাতারের বেড়া আর আইন শৃংখলাবাহিনীর দ্বারা অবরুদ্ধ অবস্থার মধ্যে বিএনপির বহু নেতাকর্মী শহরের নবাববাড়ী রোডে বিক্ষোভ কর্মসূচিতে অংশ নেন।
আইন-শৃংখলাবাহিনীর তিন স্তরের নিরাপত্তা বলয়ের মধ্যে কর্মসূচিতে যোগ দিতে সকাল থেকে নেতাকর্মীরা শহরের নবাববাড়ী রোডের জেলা কার্যালয়ে আসতে থাকেন। কিন্তু গত দুই দিন আগে তৈরী করা পুলিশের কাঁটাতারের বেড়া ভেদ করে কার্যালয়ে পৌছতে বেগ পেতে হয়। পুলিশ পরিচয় পাওয়ার পর কাউকে ঢুকতে দেয় আবার কাউকে ফিরে দিয়েছে।
কার্যালয়ের পশ্চিম পাশের ফতেহ আলী মাজারের সামনে এবং দক্ষিণে সদর পুলিশ ফাঁড়ির সামনে নবাববাড়ীর গেটে কাঁটাতারের বেরিকেড দেয়া হয়েছে। সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ফতেহ আলী মাজারের সামনের বেরিকেড ভেদ করে বেশকিছু নেতাকর্মী ভিতরে ঢুকতে চাইলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এসময় তারা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এতে কমপক্ষে ১০জন নেতাকর্মী আহত হয় বলে দলীয় সূত্রে দাবি করা হয়েছে।
এদিকে শহরের প্রতিটি মোড়ে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। প্রস্তুত রয়েছে রায়ট কার ও জলকামান।
দুপুর ১২টায় দলের জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও বগুড়া জেলা সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে দলীয় কার্যালয় থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি পুলিশ ফাঁড়ির সামনে কাঁটাতারের বেরিকেডে বাধা পেয়ে সমাবেশে মিলিত হয়। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন জেলা সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলাম। বক্তব্য দেন চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, জেলা সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন চাঁন, কেন্দ্রীয় সদস্য মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মাদ শোকরানা, আলী আজগর হেনা, লাভলী রহমান, অধ্যাপক ডাক্তার মওদুদ হোসেন আলমগীর পাভেল, রেজাউল করিম বাদশা, সাবেক এমপি নূর আফরোজ বেগম জ্যোতি, মীর শাহে আলম, পরিমল চন্দ্র দাস, তৌহিদুল আলম মামুন, আব্দুল ওয়াদুদ, আবুল বাশার, মাজেদুর রহমান জুয়েল, আলীমুর রাজি তরুন, মাহমুদ শরীফ মিঠু, শামছুল হক রোমান, মোশারফ হোসেন স্বপন প্রমুখ।
সমাবেশে ভিপি সাইফুল বলেন, সাজানো মামলায় গায়ের জোরে খালেদা জিয়াকে জেলে পাঠানো হয়েছে। কারণ বিএনপিকে বাদ দিয়ে আরো একটি ভোটারবিহীন নির্বাচন চায় আ’লীগ। কিন্তু দেশবাসী যেকোন মূল্যে কারামুক্ত করবে খালেদা জিয়াকে।

সিলেটে কড়া নিরাপত্তায় বিএনপির বিক্ষোভ
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া এবং ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সাজার প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিএনপি।
কোনো ধরনের গোলযোগ ছাড়াই কড়া নিরাপত্তায় শান্তিুপূর্ণভাবে বিক্ষোভ মিছিল করে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতারা।
শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর দরগা গেইট এলাকা থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে চৌহাট্টা পয়েন্টে গিয়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে শেষ হয়।
এ সময় চৌহাট্টা পয়েন্টে পুলিশ অবস্থান নিলেও মিছিলে বাধা দেয়নি তারা। পুলিশি কোনো বাধা না পাওয়ায় শান্তিপূর্ণভাবে বিক্ষোভ শেষ করে বিএনপি। মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কাহের শামীম।
এসময় উপস্থিত ছিলেন সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, সিলেট মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন, সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ, কয়েস লোদিসহ বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

সুনামগঞ্জে বিএনপির বিক্ষোভ
বিএনপির কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে সুনামগঞ্জে জেলা বিএনপির বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশ বাঁধা দিয়েছে। আজ শুক্রবার বেলা ১২টায় শহরের পুরাতন বাসস্টেশনের বিএনপি'র অস্থায়ী কার্যালয় থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি আলফাত উদ্দিন স্কয়ারের উদ্দেশ্যে বের হলে একশ' গজ যেতেই পুলিশ ব্যারিকেড দিয়ে থামিয়ে দেয়। পরে সেখানেই সংক্ষিপ্ত সমাবেশে করেন নেতা-কর্মীরা।
সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বিএনপি'র চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও সাবেক হুইপ ফজলুল হক আসপিয়া। এসময় মিছিলে উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি ওয়াকিফুর রহমান গিলমান, অ্যাডভোকেট শেরেনুর আলী, সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম নুরুল,সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আনিসুল হক, অ্যাডভোকেট জিয়াউর রহমান শাহীন,ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হাই প্রমুখ।

বরিশালে কড়া পুলিশ বেষ্টনীতে বিএনপির বিক্ষোভ, যুবদলের মিছিলে বাধা
দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে সাজা দেওয়ার প্রতিবাদে বরিশালে কঠোর পুলিশি বেষ্টনীতে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে বরিশাল উত্তর ও দক্ষিণ জেলা বিএনপি এবং সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে শুক্রবার বেলা ১১টায় নগরীর সদর রোডের দলীয় কার্যালয় চত্বরে এই বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়।
দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি এবায়েদুল হক চানের সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন দলের বিভাগীয় সাংগনিক সম্পাদক ও সাবেক এমপি বিলকিস জাহান শিরিন, উত্তর জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি মেজবাহউদ্দিন ফরহাদসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।
সমাবেশ শেষে দক্ষিণ জেলা যুবদল একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করতে চাইলে তাদের বাধা দেয় পুলিশ। একই দাবিতে বিকেলে বিক্ষোভ সমাবেশের আওয়াজন করেছে মহানগর বিএনপি।