ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

স্পোর্টস ডেস্ক:

১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১২:০২

অস্বস্তি নিয়ে লাঞ্চ বিরতিতে বাংলাদেশ

1203_15.jpg
ঢাকা টেস্টের দ্বিতীয় দিনেই শ্রীলঙ্কা তাদের দ্বিতীয় ইনিংসের লিড বাড়িয়ে নিয়ে গিয়েছিল ৩১২ রানে। শনিবার বাংলাদেশের লক্ষ্য ছিল ৮ উইকেটে ২০০ রানে দিনের খেলা শুরু করা শ্রীলঙ্কাকে যত দ্রুত সম্ভব অল আউট করা। সকালে প্রথম একঘন্টার মাঝে তাদের ২২৬ রানে অল আউট করতে টাইগাররা সফল হলেও লঙ্কানরা লিড বাড়িয়ে ৩৩৯ রানের বিশাল লক্ষ্য রাখে বাংলাদেশের সামনে। হাতে প্রায় দুই দিন ও ১০ উইকেট হাতে নিয়ে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং শুরু করে বাংলাদেশ। তবে দিনের লাঞ্চ বিরতির আগেই ২ উইকেট হারিয়ে ফেলেছে তারা। ১৪ ওভারে ৫৭ রান করে অস্বস্তি নিয়ে বিরতিতে গেছে টাইগাররা। মিরপুরের শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে যে জয়ের জন্য এখনো ২৮২ রানের বিশাল পথ পাড়ি দিতে হবে। আর লঙ্কানদের প্রয়োজন ৮ উইকেট। ব্যাটসম্যানদের উইকেট হারানোর ম্যাচে যা আপাতদৃষ্টিতে সহজ মনে হচ্ছে।

তৃতীয় দিনের লাঞ্চ বিরতির আগেই দুই দল মিলিয়ে টেস্টের মোট ৪০ উইকেটের ৩২টিই পরে গেছে। শুধু এই তথ্যই প্রমাণ করে বোলাররা কতটা প্রভাব বিস্তার করেছে এই ম্যাচে। মাত্র দুজন ব্যাটসম্যান রান আউটে কাটা পড়েছেন। বাকি ৩০টি উইকেটই শিকার করেছেন বোলাররা।
টস জিতে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ এই টেস্টে ব্যাটিং নেয় শ্রীলঙ্কা। প্রথম ইনিংসে তারা ২২২ রানে অল আউট হয়ে যায়। এরপর নিজেদের প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশ অল আউট হয় ১১০ রানে। ১১২ রানের লিড নিয়ে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট শুরু করে শ্রীলঙ্কা। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারালেও রোশেন সিলভার অপরাজিত ৭০ এবং বাকি ব্যাটসম্যানদের কিছু কার্যকর ইনিংস ও শেষে সুরঙ্গা লাকমালের ২১ রানের ইনিংসে ২২৬ রান সংগ্রহ করে শনিবার সকালে অল আউট হয় শ্রীলঙ্কা। প্রথম ইনিংসের ১১২ রানের লিড যোগ করে তাদের মোট লিড হয় ৩৩৮ রানের। ফলে দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশের সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ৩৩৯ রানের।

ব্যাটিংয়ে নেমে ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই ওপেনার তামিম ইকবাল ২ রান করে আউট হন। লঙ্কান স্পিনার দিলরুয়ান পেরেরার বলে এলবিডাব্লিউয়ের শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি। দলীয় সংগ্রহ তখন মাত্র ৩ রান। এরপর নতুন ব্যাটসম্যান মুমিনুল হকের সাথে ৪৬ রানের জুটি গড়েন অপর ওপেনার ইমরুল কায়েস। ব্যক্তিগত ১৭ রানের মাথায় আরেক স্পিনার রঙ্গনা হেরাথের বলে আউট হন কায়েসও। দলীয় ৪৯ রানে দুই ওপেনারকে হারিয়ে বেশ চাপে পড়ে যায় বাংলাদেশ।
উইকেটে আছেন মুমিনুল ও মুশফিকুর রহীম। মুমিনুল ৩১ ও মুশফিক ২ রানে অপরাজিত থেকে লাঞ্চ বিরতিতে গেছেন। চলতি টেস্টে এই দুজনের ব্যাট থেকে বড় কিছুই আশা করবে দল। না হয় বেশ দুর্ভোগই পোহাতে হবে বাংলাদেশকে।