ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

শহীদুল ইসলাম

২৫ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৫:১২

রোহিঙ্গা প্রশ্নে আঞ্চলিক রাজনীতিতে বাংলাদেশ একা

147_11.jpg

বাংলাদেশের ভৌগলিক অবস্থানের কারনেই রোহিঙ্গা প্রশ্নে আঞ্চলিক রাজনীতিতে বাংলাদেশ একা। বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ ভারতকে সবকিছু উজাড় করে দিলেও ভারত আঞ্চলিক রাজনীতিতে তার অবস্থান থেকে একচুলও সরে আসেনি,হয়তো আসবেওনা।এ অঞ্চলের সবচেয়ে বড় শক্তি চীন বরাবরই মিয়ানমারের পক্ষে। এটা বলার কোন অবকাশ নেই।এহেন পরিস্থিতিতে রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশ কি করবে তা সময়ই বলে দিবে। ৬ লক্ষাধিক লোককে একবার যখন আশ্রয় দেয়া হয়েছে তাদের তো বঙ্গোপসাগরে ছুড়ে দেয়া সম্ভব নয়। তবে পরিস্থিতি ক্রমেই জটিল হচ্ছে। এখনও রোহিঙ্গা আসছে। বাংলাদেশের বোঝাও বাড়ছে।
“বন্ধুদেশ” বলে বর্তমান সরকার যতই প্রচার করুকনা কেন রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে ভারতের অবস্থান। গত ১৬ নবেম্বর বৃহস্পতিবার জাতিসংঘের এজেন্ডা নির্ধারণের একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি নিয়ে ভোটাভুটিতে ভারত ভোটদানে বিরত থাকে। মুসলিম রাষ্ট্রগুলোর জোট ওআইসি’র আহবানে এ ভোটাভুটির আয়োজন করে জাতিসংঘ। এতে মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের ওপর সামরিক অভিযান বন্ধের প্রস্তাব পাশ হয়।বৈঠকে রোহিঙ্গাদের ওপর সামরিক অভিযান বন্ধে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষকে আহবান জানানো হয়। সেই সাথে দেশ থেকে বিতাড়িত ও বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নেয়ার এবং তাদের পূর্ণ নাগরিকত্বের অধিকার নিশ্চিত করার বিষয়েও গুরুত্বারোপ করা হয়।
এদিন মিয়ানমারের রোহিঙ্গা পরিস্থিতি নিয়ে এ ভোটাভুটিতে প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেয় যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেনসহ ১৩৫টি দেশ। মিয়ানমারের পক্ষে ভোট দেয় চীন, রাশিয়া সহ ১০টি দেশ। তবে ভোট দেওয়া থেকে বিরত থেকে কার্যত ভারত মিয়ানমারের প্রতিই তাদের অবস্থান জানিয়েছে। সেইসাথে দক্ষিণ এশিয়ার নেপাল, শ্রীলংকাসহ ২৬টি দেশ এ ভোটাভুটিতে নিজের অবস্থান জানাতে অনিচ্ছা প্রকাশ করে। রাখাইনে গণহত্যার শুরুর পর থেকে ভারত সরকার এ ইস্যুতে বাংলাদেশের পাশে আছে বলে দাবী করলেও এ ভোটাভুটিতে তারা অংশ নিতে বিরত থাকে।
গত আগস্ট মাসের শেষের দিকে আরাকানে সামরিক অভিযান শুরু হলে হত্যা, গণধর্ষণ, নির্যাতন থেকে বাঁচতে এখন পর্যন্ত ছয় লাখেরও অধিক রোহিঙ্গা শরণার্থী বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। সাম্প্রতিক কালের বর্বরোচিত এ জাতিগত নিধনে দেশটির সামরিক বাহিনীর সাথে যোগ দেয় স্থানীয় উগ্রবাদী বৌদ্ধ জনগোষ্ঠীও। আক্রান্ত রোহিঙ্গা মুসলিমদের বাঁচাতে ও আশ্রয় দিতে বাংলাদেশ সরকার সীমান্ত খুলে দেয় এবং তাদের পাশে দাঁড়ায়।
জাতিসংঘ, ইইউ,যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যসহ বিশ্বের শক্তিধর রাষ্ট্র ও মানবাধিকার সংস্থাগুলো মিয়ানমারের প্রতি রোহিঙ্গাদের ওপর জাতিগত নিধন বন্ধের আহবান জানালেও মিয়ানমার তাতে সাড়া দেয়নি। সেইসাথে জাতিগত নিধন ও গণহত্যার অস্বীকার করে দেশটি।এ অভিযান শুরু হওয়ার এক সপ্তাহের মধ্যে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি তাৎক্ষণিক এক সফরে মিয়ানমার যান। সেখানে দেশটির স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চির সাথে একান্তে বৈঠকে মিয়ানমারের পাশে থাকার অঙ্গীকার করেন। এটি ছিল ক্ষমতায় আসার পর মোদির প্রথম মিয়ানমার সফর।
এদিকে প্রতিবেশী মিত্র দেশে ভারতের অবস্থান নিয়ে শুরুতেই বাংলাদেশ দ্বন্দে পড়ে যায়। কারণ এ সংকটে আন্তর্জাতিক সমর্থন পেতে ভারতকে সবার আগে কাছে পাওয়ার আশা করছিল বাংলাদেশ। তখন মোদির মিয়ানমার সফরের এক সপ্তাহ পরে সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝিতে দিল্লী থেকে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ এক ফোনালাপে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে রোহিঙ্গা ইস্যুতে পাশে থাকার আশ্বাস দেন।
গত ২২ অক্টোবর তিনদিনের সফরে সুষমা স্বরাজ বাংলাদেশে এলে তখনও তিনি বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় করার অঙ্গীকারের পাশাপাশি মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের স্বদেশে প্রত্যাবাসনের পক্ষে তার সরকারের ইতিবাচক অবস্থান তুলে ধরেন। এ ইস্যুতে বাংলাদেশের পাশে দাঁড়ানোর নীতিগত অবস্থানের কথা জানান তিনি।
এর আগে ১১ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশের একটি জাতীয় দৈনিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা বলেন, লাখো রোহিঙ্গার চাপ সামলাতে বাংলাদেশকে সম্ভাব্য সব ধরনের সহযোগিতা দেবে প্রতিবেশী ভারত। বিশাল রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বোঝা সামলাতে বাংলাদেশের পাশে থাকবে তারা। তিনি বলেন, ভারত মনে করে, রাখাইনে সংঘাত অনতিবিলম্বে বন্ধ হওয়া এবং স্বাভাবিকতা ফিরে আসা উচিত।
একই দিনে সেপ্টেম্বরে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশসমূহের সংগঠন আসিয়ানের (এএসইএএন) দেশগুলোর কূটনীতিকদের সাথে ব্রিফিং শেষে পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক জানিয়েছিলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভারত ও চীন বাংলাদেশের পাশে থাকবে বলে দুই দেশের প্রতিনিধিরা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।
এ ছাড়া অক্টোবরের ৬ তারিখ দিল্লী সফরে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভারতের ভূমিকায় বাংলাদেশ খুশি। সেখানে রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানের ব্যাপারে ভারতের সাথে আলোচনা শেষে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব জানিয়েছেন, এই ইস্যুতে দুটো দেশ একসাথে আছে এবং একসাথে থেকেই তারা এই সমস্যার সমাধানের চেষ্টা করছেন।
কিন্তু ১৬ নবেম্বর বৃহস্পতিবারে রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘের ভোটাভুটিতে বিরত থাকার কারণে ভারতের অবস্থান নিয়ে আবারও সন্দিহান বাংলাদেশ। বাংলাদেশের সাম্প্রতিক সময়ে চরম সংকটকালীন মূহুর্তে প্রতিবেশী মিত্র ভারতের ভূমিকা আসলে কতটুকু, এ প্রশ্নই আবার ফিরে আসল!

ভারত ও চীন এই অঞ্চলের দুই বড় শক্তি। আয়তনে, জনসংখ্যায় তো বটেই, এমনকি শক্তি-সামর্থ্যে, প্রভাব বিস্তারেও তারা দাপুটে। নিজস্ব বলয় তৈরিতে তারা তৎপর। এই তৎপরতায় দেশ দুটি এত ব্যস্ত এবং এত সতর্ক যে, অনেক ঘটনা তাদের চোখ এড়িয়ে যায়।অনেক কিছু দেখেও চোখ বন্ধ রাখে। আর শুনতে যেন না হয়, এ জন্য কানে দিয়ে রাখে তুলো।
প্রতিদিন শয়ে শয়ে রোহিঙ্গা নারী, পুরুষ, শিশু ভিটেমাটি ছেড়ে নাফ নদী পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে ঢুকছে, ডুবে মারা যাচ্ছে। শিশুদের নিথর দেহ বয়ে নিয়ে আসছেন স্বজনেরা। জ্বালিয়ে দেওয়া হচ্ছে রোহিঙ্গাদের বাড়ি, পলায়নপর নারী-শিশুদের ওপর চালানো হচ্ছে নির্বিচারে গুলি। তবু নির্বিকার মাও সে তুংয়ের চীন ও মহাত্মা গান্ধীর ভারত।বাংলাদেশ যেখানে রোহিঙ্গাদের আশ্রয়, দানাপানি দিচ্ছে, ভারত সেখানে সে দেশে আশ্রয় নেওয়া ৪০ হাজার রোহিঙ্গাকে ফেরত পাঠানোর ফন্দি করে যাচ্ছে।
রোহিঙ্গা প্রশ্নে ভারত ও চীনের কী অবস্থান, সেটা বোঝার জন্য মিয়ানমারের প্রতি এ দুটি দেশের স্বার্থের ধরনটা আগে জানা দরকার।
প্রথমে বলা যাক ভারতের কথা। ভারতের দিল্লী, কাশ্মীরসহ বিভিন্ন স্থানে ৪০ হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থী রয়েছে। ভারত সরকার মনে করে, এই রোহিঙ্গারা তার দেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে হুমকির মুখে ফেলেছে। সন্ত্রাসী গোষ্ঠী এই রোহিঙ্গাদের দলে ভেড়াতে পারে। কেন্দ্রীয় সরকার এরই মধ্যে অবৈধ রোহিঙ্গাদের চিহ্নিত করে নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে। এ ক্ষেত্রে জাতিসংঘ শরণার্থী বিষয়ক হাইকমিশনের কোনো অনুরোধ-আবেদনও তারা গায়ে মাখছে না। জাতিসংঘ বলেছিল, আশ্রিত রোহিঙ্গাদের পরিচয়পত্র দেওয়া যায় কি না, তা ভাবতে। জবাবে ভারতের প্রতিমন্ত্রী কিরেন রিজেজু বলে দিয়েছেন, এ ধরনের প্রস্তাব অগ্রহণযোগ্য।
লক্ষ্যনীয় বিষয় হলো- ভারত মিয়ানমার বিষয়ে যেকোনো বিবৃতি বা মন্তব্য করার ক্ষেত্রে খুব সতর্ক, বিশেষ করে কোনো পক্ষ যেন সে অবস্থানকে ‘রোহিঙ্গাপন্থী’ বলে ব্যাখ্যা না করে।
গত আগষ্টে মিয়ানমার সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের বাড়িঘরে অভিযান শুরু করে। এ ঘটনায় নরেন্দ্র মোদির সরকার অং সান সু চি সরকারের সমালোচনা তো করেই নি, বরং ‘আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি’ নামে যে গোষ্ঠী নিরাপত্তা বাহিনীর সীমান্তচৌকিতে হামলা করেছে বলে খবর এসেছে, তাদের বলেছে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী। প্রথম দিনের হামলায় ৮০ জনের ওপরে সাধারণ রোহিঙ্গা নিহত হলেও বিজেপি নেতৃত্বাধীন সরকার ‘গভীর উদ্বেগ’ জানিয়েছে মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর ১০ সদস্যের মৃত্যুতে।
এর ভেতর দিয়ে স্পষ্ট, রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় মিয়ানমারের ব্যর্থতা নিয়ে বিশ্বব্যাপী সমালোচনা হলেও ভারত সরকার সমর্থনের পৈতা ধরেই রেখেছে। এর কারণ ভারত চায় মিয়ানমারের সঙ্গে সম্পর্ক আরও গভীর করতে। এটা নয়াদিল্লীর ‘অ্যাক্ট ইস্ট পলিসি’ বাস্তবায়নেরই অংশ। সাম্প্রতিক সময়ে দেশ দুটির মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য বাড়ছে ব্যাপক হারে। যদিও তা চীন ও থাইল্যান্ডের তুলনায় কম। ভারত মিয়ানমারকে দুই বিলিয়ন ডলারের উন্নয়ন সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, যদিও এ নিয়ে মিয়ানমারের বিশেষ সন্তুষ্টি নেই। কারণ প্রকল্প বাস্তবায়নের গতি বেশ ধীর।
এবার দেখা যাক চীনের স্বার্থগত জায়গাটা। মিয়ানমারের সঙ্গে চীনের সম্পর্ক ঐতিহাসিক। কী সেনা আমল, কী গণতান্ত্রিক আমল, সব সময়ই এ সম্পর্ক অটুট ছিল। বলা যায়, মিয়ানমারের পরীক্ষিত বন্ধু চীন। উত্তর কোরিয়া হাজার অন্যায় করেও যেমন সমর্থন পায় চীনের, মিয়ানমারও তেমনি সব কাজে চীনের ভালোবাসা পেয়ে থাকে। জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ একাধিকবার রাখাইন প্রদেশের অবস্থা নিয়ে আলোচনার উদ্যোগ নিয়েও শুরু করতে পারেনি শুধু চীন ও রাশিয়ার বিরোধিতায়।
গত অক্টোবরে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের নিধনের ঘটনায় জাতিসংঘ তদন্তে এলেও সরকার ও সেনাবাহিনী সমর্থন জানায়নি, কোনো সহযোগিতা করেনি। কিন্তু চীন মনে করে, মিয়ানমার যা করেছে ঠিক করেছে।
মিয়ানমারকে সাম্প্রতিক সময়ে চীনের কূটনৈতিক সুরক্ষা দেওয়ার একাধিক কারণও রয়েছে। রাখাইন রাজ্যের কিয়াকফু এলাকায় বঙ্গোপসাগরে গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণ করতে চায় চীন। তারা অবস্থান জোরদার করতে চায় ভারত মহাসাগরে।
শুধু তা-ই নয়, গত এপ্রিলে মিয়ানমারের প্রেসিডেন্টের বেইজিং সফরে দুই দেশের মধ্যে অশোধিত তেলের পাইপলাইন নির্মাণ নিয়ে সমঝোতা হয়েছে। দুই দেশের মধ্যে রেল যোগাযোগ প্রতিষ্ঠার বিষয়েও আলাপ-আলোচনা হচ্ছে।
বেইজিং সম্প্রতি আরাকানি রাজনীতিবিদদের সে দেশে আমন্ত্রণ জানায়। এদের একজন হলেন আরাকান ন্যাশনাল পার্টির চেয়ারম্যান ড. আয় মং। কট্টর জাতীয়তাবাদী আয় মং অতি সম্প্রতি রাখাইন প্রদেশে সেনা মোতায়েন এবং ওই এলাকায় জরুরি অবস্থার দাবি জানান। তিনি রোহিঙ্গাবিরোধী মানুষ।রোহিঙ্গাদের ওপর এত অত্যাচার, নির্যাতন চলল, তবু চুপ চীন। তাদের এই নীরবতা দুঃখজনক ও লজ্জাজনক।
চীন ও ভারত শক্ত অবস্থান নিলে মিয়ানমার সরকার রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর মানসিকতা বদল করতে বাধ্য হতো। কিন্তু বড় হয়েও ছোটই রইল দেশ দুটি।বাংলাদেশ মানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে ভুল করেনি। তবে আঞ্চলিক সহযোগিতা না পাওয়া দু:খজনক।আগত রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে হবে। তাদেরকে নাগরিকত্ব দিতে হবে। সসম্মানে তাদের বাড়িঘর ,জমাজমি,ব্যবসা,আবাদি জমি ফিরিয়ে দিতে হবে।এটাই হলো সমাধান। আঞ্চলিক মোড়লরা তাদের অবস্থানে অটল থাকলেও বিশ্ববিবেক হয়তো মরে যায়নি। আশার জায়গাটি হয়তো আমাদেও সেখানেই।

লেখক-সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিষ্ট।