ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

স্টাফ রিপোর্টার

১০ এপ্রিল ২০১৮, ১৭:০৪

ফারমার্স ব্যাংক জালিয়াতির ঘটনায় চিশতীসহ গ্রেপ্তার ৪

2567_chisti-nnbd.jpg
ফারমার্স ব্যাংকের প্রায় একশত ষাট কোটি টাকা সন্দেহ জনক লেনদনের অভিযোগে ব্যাংকটির অডিট কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান মাহবুবুল হক চিশতীসহ ৪জনকে গ্রেফতার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মঙ্গলবার দুপুরে  দুদকের পরিচালক কাজী শফিকুল আলমের নেতৃত্বে তাদেরকে সেগুনবাগিচায় জাতীয় রাজস্ব ভবনের সামনে থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়  বলে দুদক সূত্রে  নিশ্চিত করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, ব্যাংকটির অডিট কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান মাহবুবুল হক চিশতী (বাবুল চিশতী), ছেলে রাশেদুল হক চিশতী, ব্যাংকের এসভিপি জিয়া উদ্দিন আহমেদ,  ব্যাংকের জামালপুর বকশীগঞ্জ শাখার ফাস্ট প্রেসিডেন্ট মুহাম্মদ মাসুদুর রহমান খান।

এর আগে আজকে গুলশান থানায় দুদক পরিচালক কাজী শফিকুল আলম বাদী হয়ে ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে।

বাকি দুইজন আসামী হচ্ছে, মাহবুবুল হক চিশতীর স্ত্রী মিসেস রুজী চিশতী ও গুলশান শাখার এসইভিপি ও সাবেক ম্যানেজার দেলোয়ার হোসেন।

মামলার বিবরণীতে বলা হয়েছে, ফারমার্স
ব্যাংক কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় অসৎ উদ্দেশ্য ক্ষমতার অপব্যবহারের ব্যাংকিং নিয়মাচারের তোয়াক্কা না করে ব্যাংকটির অডিট কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান মাহবুবুল হক চিশতী তার ফারমার্স ব্যাংকের গুলশান শাখার একটি সঞ্চয়ী হিসাবে বিপুল পরিমাণ অর্থ নগদে ও পে অর্ডারের মাধ্যমে জমা ও উত্তোলন এবং বিভিন্ন সময়ে স্ত্রী, ছেলে, মেয়েদের ও তাদের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের নামে বিভিন্ন শাখায় মোট ২৫টি হিসাবে বেশির ভাগ অর্থ নগদ ও পে অর্ডারের মাধ্যমে বিভিন্ন সময়ে ১,৫৯,৯৫,৪৯,৬৪২ টাকা সন্দেহজনক লেনদেন করেছেন। বর্ণিত হিসাবগুলোতে গ্রাহকদের হিসাব হতে প্রেরিত অর্থ স্থানান্তর, হস্তান্তর ও লেয়ারিং এর মাধ্যমে গ্রহণ করে এবং নিজেদের নামে ক্রয়কৃত ব্যাংকের শেয়ারের মূল্য পরিশোধের মাধ্যমে সন্দেহজনক লেনদেন করে মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০১২ এর ৪ ধারায় শাস্তি যোগ্য অপরাধ করেছেন।