ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

এনএনবিডি ডেস্ক

১২ মে ২০১৮, ১৬:০৫

যশোর জিলা স্কুলের ৪৩ শিক্ষকের কাছে চাঁদা দাবি

3301_3.JPG
প্রতীকী ছবি
নিষিদ্ধ পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টির পরিচয়ে যশোর জিলা স্কুলের ৪৩ শিক্ষকের কাছে চাঁদা দাবি করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। চাঁদা দেওয়া না হলে হত্যা, ছেলে-মেয়েদের অপহরণের হুমকিও দেওয়া হয়েছে।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক একেএম গোলাম আজম বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জয়েন্ট সেক্রেটারি পরিচয়ে গত বৃহস্পতিবার তার মোবাইল ফোনে একজন রিং করে আমার স্কুলের নারী শিক্ষক বাদে বাকি শিক্ষকদের মোবাইল ফোন নম্বর, ঠিকানা ও বেতন স্কেল চান। আমি যেহেতু ঢাকার পথে ছিলাম, তাই এ ব্যাপারে তাকে সহকারী প্রধান শিক্ষকের সাথে যোগাযোগ করতে বলি।

সহকারী প্রধান শিক্ষক শুয়াইব হোসেন বলেন, আমার কাছেও ওই ব্যক্তি ফোন করে জানতে চান যে প্রধান শিক্ষক আমাকে কিছু বলেছেন কিনা। আমি হ্যাঁ বললে তিনি আমার কাছে ৪৩ জন শিক্ষকের নাম, ঠিকানা মোবাইল ফোন নম্বর ও বেতন স্কেল জানতে চান। আমি দীর্ঘ সময় ধরে মোবাইল ফোনেই তাকে এসব তথ্য প্রদান করি। এরপরই শুক্রবার সকাল থেকে এসব শিক্ষকের কাছে ফোন আসা শুরু হয়। দুটি নম্বর থেকে একে একে শিক্ষকদের কাছে ফোন দিয়ে বলা হয়, ‘আমার নাম হাতকাটা বিপ্লব, আমাদের পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টির বেশ কয়েকজন সদস্য দীর্ঘদিন চিকিৎসার কারণে ভারতে পলাতক ছিলাম। আমরা দেশে এসেছি। আমাদের এখন ৪০ লাখ টাকা প্রয়োজন (কারও কারও কাছে ২০ লাখ টাকার কথা বলা হয়েছে)। আপনি কত দিতে পারবেন?’ টাকা না দিলে হত্যা, এমনকি ছেলে-মেয়েদের অপহরণ করা হবে বলেও হুমকি দেওয়া হয়। টাকা পাঠানোর জন্য একটি বিকাশ নম্বর পাঠায়। পর্যায়ক্রমে ফোন দেওয়া হয় শিক্ষক সাজেদুর রহমান, ফজর আলী, নজরুল ইসলাম খান, রুহুল আমীন, হাবিবুল হাসান, শফিয়ার রহমানসহ সবাইকে। কেউ কেউ ফোন রিসিভ করতে পারেননি। যাদের সাথে কথা হয়েছে, তাদের সবাইকে একই ভাষায় টাকা চাওয়া হয়েছে, গালাগালিও করা হয়েছে বলে শিক্ষকরা জানান।

এ ব্যাপারে যশোর জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক একেএম গোলাম আজম বলেন, ‘আমাদের স্কুলের সভাপতি যশোরের জেলা প্রশাসক মো. আব্দুল আওয়াল। আজ দুপুরে এ ব্যাপারে তার সাথে আলোচনা করে আমরা পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।