ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

সৈয়দ মাসুদ মোস্তফা

১৮ জুলাই ২০১৮, ১৬:০৭

ভুল চিকিৎসার দায়ভার

সংবাদপত্রের পাতায় প্রতিনিয়তই ভুল চিকিৎসার সংবাদ প্রকাশিত হয়। এ প্রবণতা আগের তুলনায় অনেকটা বেড়েছে বলেই মনে হচ্ছে। সম্প্রতি চট্টগ্রামে ভুল চিকিৎসার শিকার হয়ে একজন শিশু মৃত্যুবরণ করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টি সেখানেই থেমে থাকেনি বরং সংশ্লিষ্ট বেসরকারি হাসপাতালে র‌্যাব সহ আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর অভিযান ও চিকিৎসক বহিস্কারের মত অনভিপ্রেত ঘটনাও ঘটেছে। ফলশ্রুতিতে চিকিৎসকরাও ধর্মঘট পালন করেছেন। এতে সাধারণ মানুষ চিকিৎসা না পেয়ে দুর্ভোগের শিকার হয়েছে। এমনকি বিষয়টি দেশের উচ্চ আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে। বিষয়টি নিয়ে মহামান্য হাইকোর্ট বিভাগ একটি পর্যবেক্ষণও প্রদান করেছেন।  কিন্তু বিষয়টি কোন পক্ষের জন্যই সুখকর হয়নি।
রোগীরা চিকিৎসক কর্তৃক ভুল চিকিৎসার শিকার এই অভিযোগ মোটেই সর্বসাম্প্রতি নয় বরং বেশ পুরনো।  বিষয়টি নিয়ে ভুক্তভোগীদের প্রায়শঃই উষ্মা প্রকাশ করতে দেখা যায়। মূলত ভুল চিকৎসার কারণে রোগী ও তাদের স্বজনরা অনেক বিড়ম্বনার শিকার হন। এমনকি অনেক ক্ষেত্রে প্রাণহানীর ঘটনা ঘটে। যা কোন ভাবেই কাঙ্খিত নয়। তাই ভুল চিকিৎসার দায়ভার চিকিৎসকগণ কোনভাবেই এড়াতে পারেন না। তবে মনে রাখতে চিকিৎসকরাও মানুষ। তারা কোন অবস্থায় মানবীয় ভুলত্রুটির উর্দ্ধে নয়। তাই তাদের মাননীয় ভুলগুলোকে মানবীয় ভুল হিসেবেই বিবেচনা করতে হবে। কিন্তু একথা অস্বীকার করা যাবে না যে, একশ্রেণির চিকিৎসকের দায়িত্ব পালনে উদাসীনতা ও কর্তব্য পালনে অবহেলার কারণে রোগীরা ভুল চিকিৎসার শিকার হন। যা কোন ভাবেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। তাই চিকিৎসকদের স্বতঃপ্রণোদিত ভুলগুলোকে ভুল হিসেবে বিবেচনায় আনতে হবে এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তিরোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
চিকিৎসকদের অবশ্যই মনে রাখতে তাদের পেশা খুবই স্পর্শকাতর পেশা। তাই দায়িত্ব পালন বা রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে যথাসম্ভব সতর্কতা অবলম্বন করা দরকার। কর্তব্য পালনে অবহেলা বা ভুল চিকিৎসার কারণে সাধারণ মানুষ যাতে অহেতুক কষ্ট না পান বা প্রাণহানীর মত বিয়োগান্তক ঘটনা না ঘটে সেদিকে যথাযথ দৃষ্টি রাখা চিকিৎসকদের অবশ্য কর্তব্য। আর কিচিৎসকরা যাতে কর্তব্যনিষ্ঠ ও দায়িত্ব পরায়ণ হয়ে উঠেন সে জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সহ সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলোকে সক্রিয় ভূমিকা পালন করা উচিত।
পূনশ্চ,  ভুল চিকিৎসা কাঙ্খিত নয়। একটুতেই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে গতানুগতিক অভিযোগ নয়ও। এই দুইয়ের সমন্বয়ই আমাদেরকে ভুল চিকিৎসার হাত থেকে রক্ষা করতে পারে।