ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

এনএনবিডি ডেস্ক

১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৯:০৯

গার্মেন্টস সেক্টরের নেতৃত্বে ফ্যাশন ডিজাইনের শিক্ষার্থীরা

6809_তততততত.jpg
ষাটের দশকে যাত্রা শুরু করা পোশাক শিল্প অনেক বছর ধরেই দেশের রফতানিমুখী প্রধান শিল্পখাত। আর এই খাতের নকশা ও শিল্প নির্দেশনায় এখন নেতৃত্ব দিচ্ছেন ফ্যাশন ডিজাইন থেকে পাস করা শিক্ষার্থীরা। ১৯৯৬ সালে দেশে ফ্যাশন ডিজাইনের ওপর পড়াশোনার সুযোগ সৃষ্টির পর ২২ বছরের মধ্যে এই পরিবর্তন দেশে গার্মেন্টস শিল্পের প্রসার ও এই শিল্প নিয়ে পড়াশোনা ও পেশাদার কাজে এনেছে অপার সম্ভাবনা ও অগ্রগতি। একইসঙ্গে দেশীয় ফ্যাশন হাউসগুলোতেও দ্রুত জায়গা তৈরি করে নিচ্ছেন তারা।

তবে ২০০০ সালের প্রথম দিকেও এই অবস্থা ছিল না। গত শতাব্দীর শেষের দশকে গড়ে ওঠা ফ্যাশন হাউস বিশ্বরঙের কর্ণধার বিপ্লব সাহা স্মৃতিচারণ করে বলেন, ফ্যাশন ডিজাইনের ওপর পড়ার আগ্রহ থাকলেও দেশে তখন এমন কোনও প্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠেনি। তাই নিজের আগ্রহে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউট থেকে স্নাতক শেষ করে বাংলাদেশি মোটিফ ও ফ্যাশন নিয়ে কাজ শুরু করেন। সেসময়ে যারা ফ্যাশন হাউসের সঙ্গে সম্পৃক্ত হন তাদের সবারই অবস্থা একইরকম। এরপর চারুকলা থেকে পড়াশোনা করা অনেকেই সম্পৃক্ত হয়েছেন তার ডিজাইন টিমে। তবে এখন পরিস্থিতির বেশ বদল হয়েছে। ডিজাইন টিমের নেতৃত্বে চারুকলার স্নাতকরা থাকলেও এখন জুনিয়র ফ্যাশন ডিজাইনার হিসেবে শান্ত-মারিয়াম ইউনিভার্সিটি অব ক্রিয়েটিভ টেকনোলজি ও ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ফ্যাশন ডিজাইনের বেশ কয়েকজন আছে।

ফ্যাশন হাউস সাদাকালোর কর্ণধার তাহসিনা শাহীনও পড়াশোনা করেছেন চারুকলা থেকে। তিনি বলেন, ‘ আমার শিক্ষাজীবনে ফ্যাশনবিষয়ক কোনও পড়ালেখা বাংলাদেশে শুরু হয়নি। শুধুমাত্র বিসিকের একটি ছোট্ট কর্মশালা ছিল। আমি নিজ আগ্রহ থেকে ফ্যাশন নিয়ে কাজ শুরু করি।’তবে এখন সময় পাল্টেছে জানিয়ে তিনি বলেন, এখন সাদাকালোতে ডিজাইনার গ্রুপে ফ্যাশন ডিজাইনে পড়াশোনা করা ডিজাইনার ও চারুকলা থেকে পাস করা শিক্ষার্থীর সংখ্যা সমান।

দেশীয় ফ্যাশন হাউসগুলোতে ফ্যাশন ডিজাইনার হিসেবে চারুকলার শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি জায়গা করাসহ নিজেদের উদ্যোগে ফ্যাশন হাউস গড়ে তোলার এই প্রতিযোগিতা থাকলেও দেশের রফতানিমুখী তৈরি পোশাক কারখানাগুলোতে কিন্তু অবস্থাটা একেবারেই উল্টো। এসব পোশাক কারখানায় এখন ফ্যাশন ডিজাইন থেকে স্নাতক ডিগ্রিধারীদের অগ্রাধিকার। ফলে রফতানিমুখী তৈরি পোশাক শিল্পে তাদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় পেরে উঠছে না অন্যরা।
এ বিষয়ে বিজিএমই ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন টেকনোলজির ফ্যাশন ডিজাইন বিভাগের অধ্যাপক কাজী শামসুর রহমান বলেন, ২০০০ সাল থেকে ফ্যাশন ডিজাইনে স্নাতক সনদ দিয়ে আসছে বিজিএমই –এর ফ্যাশন ইনস্টিটিউট। ২০১৩ সালে যা পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপ নেয়।গত ১৮ বছরে এই প্রতিষ্ঠান থেকে স্নাতক ও ডিপ্লোমা নিয়ে প্রায় ৬ হাজার শিক্ষার্থী বের হয়েছে। তারা এখন দেশের গার্মেন্টস শিল্পকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

দেশীয় ডিজাইনারের ফ্যাশন শোবাংলাদেশের রফতানি খাতে যে বৈদেশিক মুদ্রা আয় হয় তার ৮৩ শতাংশ আসে রেডিমেড গার্মেন্টস সেক্টর থেকে- এটি উল্লেখ করে অধ্যাপক শামসুর রহমান বলেন, ‘এখানেই কাজ করছেন বিজিএমই’র সাবেক শিক্ষার্থীরা। আগে গার্মেন্টস সেক্টরে বাইরে থেকে বিশেষজ্ঞ আনতে হতো। কিন্তু বিজিএমই’র শিক্ষার্থীরা সেই দৃশ্যপট পাল্টে দিয়েছে। তারা টেক্সটাইল, অ্যাপারেলস, গার্মেন্টস এন্টারপ্রেনিওর,ও ডিজাইনারসহ নানা সেক্টরে কাজ করছে। তিনি জানান, এদের মধ্যে অনেকেই অনেক বড় বড় গার্মেন্টসের জিএম, চিফ ডিজাইনার ও প্ল্যানার হিসেবে কাজ করছেন।

কাজী শামসুর রহমান আরও বলেন, ‘তাদের এখান থেকে পাস করা একজন শিক্ষার্থীও বেকার নেই। তারা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ পর্যায়ে আছেন। এরা শুধুমাত্র ফ্যাশন ডিজাইনার হিসেবেই নয়, মার্চেন্ডাইজার এক্সপার্ট ও টেক্সটাইল এক্সপার্ট হিসেবেও কাজ করছেন।’ বায়িং হাউসগুলোর সিংহভাগ কর্মকর্তা তাদের প্রতিষ্ঠানের বলেই জানান কাজী শামসুর রহমান।
দেশীয় ডিজাইনারের ফ্যাশন শোএকই সুরে কথা বললেন, শান্ত-মারিয়াম ইউনিভার্সিটি অব ক্রিয়েটিভ টেকনোলজির ফ্যাশন ডিজাইন বিভাগের প্রধান মনোয়ারা বেগম। তিনি জানালেন, আমাদের শিক্ষার্থীরা পাস করার আগেই বিভিন্ন হাউস থেকে চাকরির অফার পায়। এখানে পড়াশোনার পাশাপাশি ফ্যাশন হাউস বা গার্মেন্টসে কাজ করাটাই খুব স্বাভাবিক।

তিনি জানান, ২০০৩ থেকে শান্ত-মারিয়াম ফ্যাশন ডিজাইনে স্নাতক সনদ দিচ্ছে। এ পর্যন্ত গড়ে ৫ থেকে ৬ হাজার শিক্ষার্থী বের হয়েছে এই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। ফ্যাশন ডিজাইনকে শুধুমাত্র পরিধান করার পোশাকের নকশা করার মধ্যে সীমাবদ্ধ করে না ফেলার অনুরোধ জানান তিনি।

মনোয়ারা বেগম বলেন, ‘এখানে ফ্যাশন থেকে পাস করা একজন শিক্ষার্থীর সামনে ডিজাইনার ছাড়াও টেক্সটাইল এক্সপার্ট, ফ্যাশন স্টাইলিস্ট, ফ্যাশন সাংবাদিক, ব্যবসায়ী, বুটিকের মালিক, অ্যাপারেল মার্চেন্ডাইজার, শিক্ষক, ফ্যাক্টরি ম্যানেজার, প্রডাকশন ম্যানেজার, কমপ্লায়েন্স ম্যানেজারের মতো অসংখ্য বিভাগে কাজ করার দুয়ার খুলে যায়। ফলে গার্মেন্টস সেক্টরসহ ফ্যাশন হাউস আর নিজস্ব বুটিক সবখানেই শান্ত-মারিয়ামের শিক্ষার্থীদের সদর্প বিচরণ।’

দেশীয় ডিজাইনারের ফ্যাশন শোমনোয়ারা বেগম আরও জানান, দেশ ও দেশের বাইরেও কাজ করছে তাদের শিক্ষার্থীরা। এইচএনএম, আড়ং, ইয়েলো, বিশ্বরঙ, সাদাকালোসহ অসংখ্য ফ্যাশন হাউসে কাজ করছে তাদের শিক্ষার্থীরা। এমন কি এসব শিক্ষার্থীদের একটি বিশাল অংশের নিজস্ব বুটিক রয়েছে।

তিনি ই-কমার্সকে সাধুবাদ জানিয়ে বলেন, ‘ই-কমার্সের ফলে অনেকেই চাকরির পেছনে না ছুটে নিজস্ব অনলাইনভিত্তিক বুটিকস খুলেছেন।’ তিনি জানান, শান্ত-মারিয়াম থেকে ফ্যাশন ডিজাইনে পাস করা শিক্ষার্থীদের মধ্যে বেকারত্ব নেই বললেই চলে।

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ফ্যাশন টেকনোলজির শিক্ষক ও ডিপার্টমেন্ট কো-অর্ডিনেটর গোলাম রব্বানি জানান, ২০০৭ সাল থেকে ফ্যাশন ডিজাইনের ওপর স্নাতক সনদ দিচ্ছে তার প্রতিষ্ঠান। প্রতি বছর দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী স্নাতক শেষ করে বেরিয়ে যাচ্ছেন। গত ১১ বছরে প্রায় দুই হাজার শিক্ষার্থী স্নাতক শেষ করেছেন। এখন পর্যন্ত এই প্রতিষ্ঠানের অ্যালামনাই গঠিত না হওয়ায় পাস করে যাওয়া শিক্ষার্থীরা কে কী করছেন সে বিষয়ে কোনও তথ্য প্রতিষ্ঠানটির কাছে নেই। তবে বেশিরভাগই গার্মেন্টস ও বায়িং হাউসে বিশেষজ্ঞ হিসেবে কাজ করছেন।  সূত্র : বাংলাট্রিবিউন