ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

এনএনবিডি, ঢাকা:

১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২২:০৯

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের আলটিমেটাম

6903_zia.jpg
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচনসহ বিভিন্ন দাবিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অভিমুখে পদযাত্রা করেছে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা।

পদযাত্রাটি সুপ্রিমকোর্টের মাজারগেট এলাকায় পুলিশের বাধার মুখে পড়লে পরে আইনজীবীরা সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেন। সমাবেশে আগামী ২২ সেপ্টেম্বরের মধ্যে দাবি আদায় না হলে কঠোর কর্মসূচি দেয়ার হুশিয়ারি দেয়া হয়। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পৌঁছে দেয়ার আশ্বাস দিলে শাহবাগ থানার ওসির কাছে স্মারকলিপিটি তুলে দেন আইনজীবীরা।

পূর্বকর্মসূচি অনুয়ায়ী মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও খালেদা জিয়ার মুক্তি আইনজীবী আন্দোলনের ব্যানারে আইনজীবীরা স্মারকলিপি নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অভিমুখে রওনা হয়। দুপুর সোয়া ২টার দিকে পদযাত্রাটি সুপ্রিমকোর্ট থেকে মাজারগেট এলাকায় গেলে পুলিশ গেট বন্ধ করে দেয়। এ সময় আইনজীবীরা বিভিন্ন স্লোগান দেয়। পরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পৌঁছে দেয়ার আশ্বাস দিলে শাহবাগ থানার ওসির কাছে স্মারকলিপিটি তুলে দেন আইনজীবীরা।

এ সময় সংক্ষিপ্ত সমাবেশে অ্যাডভোকেট আবেদ রাজা বলেন, পুলিশ দিয়ে খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন বন্ধ করা যাবে না। বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন ও নব্বইয়ের স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনসহ বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামের উদাহরণ দিয়ে বলেন, এসব আন্দোলনেও পুলিশ বাধা দিয়েছিল। অনেক শহীদের বিনিময়ে শেষ পর্যন্ত আন্দোলন সফল হয়েছে।

আবেদ রাজা বলেন, আইনজীবীরা রাজপথে নেমেছেন। আন্দোলন এখন আর আদালত অঙ্গনে নয়, রাজপথে আন্দোলন করতে হবে।
তিনি বলেন, একজন অসুস্থ আসামিকে জোর করে কারাগারে স্থাপন করা আদালতে বিচার করার কোনো নজির নেই। অবিলম্বে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। তা না করা হলে, তার জীবন বিপন্ন হলে তার দায় সরকারকে নিতে হবে।

তিনি বলেন, আজ দেশে আইনের শাসন নেই। বিচার বিভাগ ও প্রশাসন সরকারের ইচ্ছায় চলছে। অবিলম্বে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে সুচিকিৎসা করতে হবে। তা না হলে আইনজীবীরা দেশের জনগণকে সঙ্গে নিয়ে রাজপথে আন্দোলন করে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবে এবং দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনবে।

সমাবেশে বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, আজ যখন খালেদা জিয়া কারাগারে চিকিৎসার অভাবে হাত পা অবশ হয়ে যাচ্ছে তখন মনে হচ্ছে যারা সরকারে আছে তাদের মাথা অবশ হয়ে গেছে। সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রীর গুরুতর অসুস্থ হলেও প্রশাসন ও বিচার বিভাগ থেকে চিকিৎসার ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। তা হলে বর্তমান সরকারের সঙ্গে স্বৈরশাসকের পার্থক্য কি?

তিনি বলেন, আইনজীবীরা আজ রাস্তায় নেমেছে। প্রয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর দফতরের সামনে যাবে।

সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও খালেদা জিয়া মুক্তি আইনজীবী আন্দোলনের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবিএম ওয়ালিউর রহমান খান, সংগঠনের সদস্যসচিব এবিএম রফিকুল হক তালুকদার রাজা, মো. মনির হোসেন, আনিছুর রহমান খান, আইয়ুব আলী আশ্রফী, আনজুমান আরা বেগম মুন্নি মাসুদুল আলম দোহা, ওয়াসিল উদ্দিন বাবু, নাজমুল হোসেন, আবদুস সাত্তার, মো. মহীদ উদ্দিন, শফিউর রহমান শফি প্রমুখ।