ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

এনএনবিডি, ঢাকা:

১৫ অক্টোবর ২০১৮, ২১:১০

আরপিও সংশোধন হলে কিছু কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার: ইসি সচিব

7777_election.jpg
সরকার আরপিও সংশোধন করলে নির্বাচন কমিশন (ইসি) কিছু কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করবে।

সোমবার (১৫ অক্টোবর) ইসির সভা শেষে সংবাদ ব্রিফিংয়ে এ কথা জানিয়েছেন ইসি সচিবালয়ের সচিব হেলালুদ্দিন আহমদ।

দুপুরে ঘণ্টাখানেক বিরতি দিয়ে আজ বেলা ১১টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত সভা করে ইসি। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই সভায় কমিশনার রফিকুল ইসলাম, শাহাদাৎ হোসেন ও কবিতা খানম এবং কমিশন সচিবালয়ের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। নির্বাচনসংক্রান্ত কিছু বিষয় সভায় আলোচ্যসূচিতে না থাকার প্রতিবাদে নোট অব ডিসেন্ট দিয়ে সভা ত্যাগ করেন কমিশনার মাহবুব তালুকদার।

সভা শেষে সংবাদ ব্রিফিংয়ে সচিব বলেন, নির্বাচন করার জন্য কী কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, কী কী পদক্ষেপ নিতে হবে, সেসব বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। সচিবালয় থেকে জানানো হয়েছে, ইতিমধ্যে বেশ কিছু মালামাল কেনা হয়েছে। সেগুলো গুদামে রাখা হয়েছে। আরও কিছু মালামাল কিনতে হবে,যা অচিরেই কেনা হবে।

সচিব আরও জানান, নির্বাচনের জন্য ভোটার তালিকা চূড়ান্ত করা হয়েছে। ভোটার তালিকায় কোনো ত্রুটি আছে কি না, তা যাচাই করে ইসি ৩০ অক্টোবরের মধ্যে তালিকা প্রস্তুত করতে বলেছে। ভোট গ্রহণের জন্য ৪০ হাজার ১৯৯টি কেন্দ্রের প্রাথমিক তালিকা তৈরি করা হয়েছে। নির্বাচন করার জন্য ৭০০ কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব করা হয়েছে বলেও সচিব জানান। তিনি আরও জানান, নির্বাচনের সময় জেলা–উপজেলা পর্যায়ে ইসি সচিবালয়ের যেসব পদ খালি আছে, সেগুলোতে জনপ্রশাসন থেকে নিয়োগ দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে।

কমিশনার মাহবুব তালুকদারের সভা ত্যাগ ও নোট অব ডিসেন্ট দেওয়ার প্রশ্নে হেলালুদ্দিন বলেন, তিনি কিছু বিষয় অ্যাজেন্ডাভুক্ত করার কথা বলেছিলেন। সেগুলো অ্যাজেন্ডায় না আসায় তিনি সভা ত্যাগ করেন। ইসি বলেছে, তাঁর অ্যাজেন্ডাভুক্ত বিষয়ের কিছু বিষয়ে ইতিমধ্যেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ইভিএমের বিষয়ে ইসি সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আরপিও সংশোধন হলে কিছু কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার করার প্রস্তুতি ইসির আছে। অনলাইনে প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার বিষয়েও সিদ্ধান্ত হয়েছে। তফসিল ঘোষণার পর সেনা মোতায়েনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।

সভায় মাহবুব তালুকদারকে কথা বলতে না দেওয়ায় তাঁর বাকস্বাধীনতা হরণ, কিংবা সভার কাজ বিঘিœত হয়েছে কি না, জানতে চাইলে সচিব বলেন, এটা ইসির ব্যাপার। তবে কমিশনার মাহবুব তালুকদার সভা ত্যাগ করায় সভার কাজ বিঘিœত হয়নি।