ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

আবু কাওছার আহমেদ, টাঙ্গাইল থেকে

৬ নভেম্বর ২০১৮, ১৪:১১

টাঙ্গাইলে ছানোয়ারের হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন

8431_Tangail Human chaine pic 6-11-18--2.jpg
টাঙ্গাইল সদর উপজেলার করটিয়া ইউনিয়নের নগরজৈলফই এলাকার মো. নুরুল ইসলামের ছেলে মো. ছানোয়ার হোসেনের হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন কর্মকসূচি পালন করেছে এলাকাবাসী। ৬ নভেম্বর মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় টাঙ্গাইল প্রেস ক্লাবের সামনে এ মানব বন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন নিহত ছানোয়ার হোসেনের পিতা মো. নুরুল ইসলাম, ভাই মো. সরোয়ার হোসেন, মো. আনোয়ার হোসেন, স্ত্রী মলি খান, ছেলে মুশফিকুর রহমান কথন, প্রতিবেশি হাসমত আলী প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা   বলেন, পূর্ব শত্রুতার জেরে ছানোয়ার হোসেনকে হত্যা করা হয়েছে। ছানোয়ার হোসেন খুবই ভাল মানুষ ছিলো। তার জন্য ছানোয়ারের মৃত্যু বরণ করতে হয়েছে। হত্যাকারীদের নামে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। তাই হত্যাকারীদের ফাঁসি দাবি করছি।

এর পরে টাঙ্গাইল প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে নিহতের পরিবার।
এলাকাবাসী ও মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ৩১ নভেম্বর নগরজৈলফই এলাকা ছোটদের সাথে ‘বড় ভাই ও ছোট ভাই বলাবলি’ নিয়ে ঝগড়ার সৃষ্টি হয়। পরে ছোটদের ঝগড়া থামিয়ে দিয়ে শহরের দিকে আসছিলেন ছানোয়ার হোসেন। পথিমধ্যে পূর্বশত্রুতার জেরে ছানোয়ারকে এলোপাথারী কোপাতে থাকে যুবকরা। একটি কোপ মাথার মধ্যে লাগলে সাথে সাথেই ছানোয়ার হোসেন মাটিতে পড়ে যায়। স্থানীয়ারা ছানোয়ার হোসেনকে উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।

ছানোয়ার হোসেনের অবস্থা অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় রেফার করা হয়। এ ঘটনার প্রেক্ষিতে ছানোয়ার হোসেনের বাবা মো. নুরুল ইসলাম বাদি হয়ে ছয়জনকে আসামী করে ১ নভেম্বর  ১৪৩/৩৪১/৩২৩/৩২৪/৩০৭/৩২৬/৩৭৯/৫০৬/১১৪/৩৪ ধারায় টাঙ্গাইল মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় নগরজৈলফই এলাকার মো. আক্কাস আলীর ছেলে মো. সবুজ মিয়া (২৪), আতোয়ার হোসেনের ছেলে মো. রতন (২৭), মো. আ. গনির ছেলে মো. রাশেদ (৩৬), মো. আফাজ উদ্দিনের ছেলে মো. সিজান (১৯),  মো. আতোয়ার হোসেনের ছেলে মো. আক্তার হোসেন (২২), মৃত রহিম উদ্দিনের ছেলে মো. আতোয়ার হোসেন(৫২)কে আসামী করা হয়। গত ১ নভেম্বর রাত সাড়ে ১০টা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিবির পরিচর্যা কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছানোয়ার হোসেন মৃত্যু বরণ করেন। আগের ওই মামলাটি  পেনাল কোডের ৩০২ ধারায় সংযোজনের জন্য অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালত ‘খ’ অঞ্চলে ৩ নভেম্বর আবেদন করা হয়।