ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

এনএনবিডি ডেস্ক

১২ নভেম্বর ২০১৮, ০৯:১১

নির্বাচনে যাচ্ছে বাম জোট

8553_images.jpg
একাদশ জাতীয় সংসদ ‘আন্দোলনের অংশ হিসেবে’ নির্বাচনে অংশ নিতে যাচ্ছে বাম গণতান্ত্রিক জোট । এখন পর্যন্ত আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দু-একদিনের মধ্যেই আসবে।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট কিংবা আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন জোটের সঙ্গেই যাবে না তারা। তবে ‘প্রহসনের’ নির্বাচন হলে সেখান থেকে ফিরে আসার জন্য ব্যবস্থা তারা রাখবে। জোটগত প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র জমা দিলেও তাদের প্রত্যাহারপত্র জোটের কাছে রাখা হতে পারে।

বাম গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয়ক ও বাংলাদেশ বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক বলেন, নির্বাচন নিয়ে জোটের অবস্থান নিয়ে আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত শিগগিরই জানানো হবে।

বাম গণতান্ত্রিক জোটের বেশ কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সরকারের সঙ্গে জোটের যে সংলাপ হয়েছে সেখানে প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসগুলোও এখন পুরণ হয়নি। মানুষকে আশ্বস্ত করার মতো রাজনৈতিক পদক্ষেপও দেখা যায়নি। তাই নির্বাচনের পরিবেশ নিয়ে তাঁদের মধ্যে সংশয় রয়ে গেছে।

জোটের সমন্বয়ক সাইফুল হক বলেন, সদিচ্ছা প্রমাণ করার জন্য হয়রানি, মামলা, গ্রেপ্তার দ্রুত বন্ধ করা উচিত। তিনি বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে সরকারি দলের বেপরোয়া আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে ৪৮ ঘন্টার মধ্যেও নির্বাচন কমিশনের কার্যকর পদক্ষেপ আমরা দেখিনি।

গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি বলেন, রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে নির্বাচনের তফসিল নতুন করে নির্ধারন করা এ মুহূর্তে জরুরি। তবে বাম জোটের সমন্বয়ক সাইফুল হক মনে করেন, এ বিষয়ে আলোচনারই কিছু নেই।

ইতিমধ্যেই প্রায় সব দলই নির্বাচনের তফসিল পেছানোর কথা বলেছে। সেই দাবির প্রতি সম্মান জানিয়ে নির্বাচন দুই তিন সপ্তাহ পিছিয়ে দিলে নির্বাচন কমিশনেরও সদিচ্ছা প্রমাণ হবে। তিন মনে করেন, নির্বাচন কমিশন এখন পর্যন্ত কোনো দক্ষতা বা নিরপেক্ষতা প্রমাণ করতে পারেনি।

নির্বাচনের অংশ নেওয়ার বিষয়ে আনুষ্ঠানিক কোনো ঘোষণা না এলেও বাম জোট এ বিষয়ে প্রাথমিক সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করে রেখেছে। বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য রুহিন হোসেন প্রিন্স বলেন, আমরা আন্দোলনের অংশ হিসেবে ভোটে যেতে চাই। আবার প্রহসনের কোনো নির্বাচনের সঙ্গী হতে চাই না। প্রহসনের কিছু করার চেষ্টা করলে জোটগতভাবেই সিদ্ধান্ত হবে।