ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

এনএনবিডি, ঢাকা

১৬ নভেম্বর ২০১৮, ২১:১১

ঐক্যফ্রন্টকে শেষ পর্যন্ত ভোটে থাকার পরামর্শ সম্পাদকদের

8632_4.jpg
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আয়োজনে সম্পাদকদের সাথে মতবিনিময়কালে শেষ পর্যন্ত ভোটের মাঠে থাকার কথা বলেন বিভিন্ন পত্রিকার সম্পাদকেরা।

আজ শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর গুলশানে লেকশোর হোটেলে এক মতবিনিময় সভায় তারা এ পরামর্শ দেন।

অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন নিশ্চিত করতে সম্পাদকদের সঙ্গে এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

সভার শুরুতে ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন ও মুখপাত্র মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বক্তব্য দেন।

এ সময় কামাল হোসেন সাংবাদিকদের কাছে জানতে চান, আপনারা নিজেদের অবস্থান থেকে কী করলে নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে?

এরপর সাংবাদিকরা তাদের মতামত তুলে ধরেন।

নিজের মতামত দিয়ে আমাদের নতুন সময়ের সম্পাদক নাঈমুল ইসলাম খান ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের কাছে প্রশ্ন রাখেন, ক্ষমতায় অথবা বিরোধী দলে গেলে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপন করবে কি না?

তিনি আরও জানতে চান, সাম্প্রতিক সময়ে ঐক্যফ্রন্টের জনসভায় সকল ধর্মীয়গ্রন্থ পাঠ করা হয়েছে। পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে প্রশান্তিমূলক আলোচনা হয়েছে— এগুলো তাদের ঐক্যবদ্ধ চিন্তার ফসল কি না?

নাঈমুল ইসলাম খানের প্রশ্নের জবাব শেষে দেয়া হবে বলে জানান ঐক্যফ্রন্ট নেতারা। এরপর ক্ষমতায় গেলে ঐক্যফ্রন্টের প্রধানমন্ত্রী কে হবেন— এমন প্রশ্ন করেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রধান তৌফিক ইমরোজ খালেদী।

জবাবে ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘জোটের সংখ্যাগরিষ্ঠ দল বসে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে।’ সভার মাঝপথে অন্য একটি জরুরি কাজ থাকায় নাঈমুল ইসলাম খান এবং তৌফিক ইমরোজ খালিদী চলে যান।

মতবিনিময় শেষে সাপ্তাহিকের সম্পাদক গোলাম মোর্তোজা সাংবাদিকদের বলেন, ‘ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচনে আসার সিদ্ধান্তকে আমরা স্বাগত জানিয়েছি। তাদেরকে শেষ পর্যন্ত নির্বাচনের মাঠে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা বলেছি, নির্বাচনে প্রতিকূল অবস্থা থাকবেই। কিন্তু, মাঝপথে নির্বাচন বয়কটের সুর ঐক্যফ্রন্টের কাছ থেকে শোনা যাচ্ছে, যা সাধারণ মানুষসহ গণমাধ্যমকে ভড়কে দিচ্ছে। তাই এসব বক্তব্য পাল্টে আগামীর বাংলাদেশ ও গণতন্ত্রের স্বার্থে ঐক্যফ্রন্টকে নির্বাচনে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়।’

গোলাম মোতোর্জা আরও বলেন, ‘ঐক্যফ্রন্ট গণমাধ্যমের কাছে প্রকৃত চিত্র দেখতে চায়। তারা বলেছেন, নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিয়ে অনেক ঘাটতি আছে। আমরা তাদের বলেছি, প্রয়োজনে এই ইস্যুতে আপনারা রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও নির্বাচন কমিশনের কাছে যেতে পারেন। এতে নির্বাচনের পরিবেশ অনেকটাই তৈরি হবে। তারা এসব বিষয়ে গণমাধ্যমের সহায়তা চেয়েছেন। জোটের নেতাকর্মীরা যাতে নিজ নিজ এলাকায় গিয়ে কাজ করতে পারেন, সে বিষয়েও তারা সহযোগিতা চেয়েছেন।’

মতবিনিময় বিকেল সোয়া ৩টায় শুরু চলে সাড়ে ৫টা পর্যন্ত।

সভা থেকে বেরিয়ে ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন নিশ্চিত করতে আমরা সম্পাদকদের সঙ্গে কথা বলেছি। সম্পাদকরা আমাদের কাছে তাদের প্রত্যাশার কথা তুলে ধরেছেন।’

তিনি বলেন, ‘নির্বাচনী পরিবেশ রক্ষা করা যেমন সরকারের কর্তব্য, তেমনি আমাদেরও দায়িত্ব রয়েছে।’

কামাল হোসেন বলেন, ‘সম্পাদকদের সঙ্গে আলোচনার উদ্দেশ্য ছিল— অতীত অভিজ্ঞতার আলোকে আমাদের যেসব বিষয়ে বিরত থাকতে হয়, নির্বাচন কীভাবে অবাধ হয় এবং জনগণ সত্যিকার অর্থে যাতে ভোট দিতে পারেন, এসব বিষয়ে পরামর্শ ও সহযোগিতা নেয়া। আলোচনায় খুবই মূল্যবান কিছু বিষয় উঠে এসেছে।’

ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র ও বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন, ‘অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য আমরা সম্পাদকদের কাছে সব রকম সহযোগিতা চেয়েছি। তারা নিজ নিজ অবস্থান থেকে যৌক্তিক বিষয়ে তাদের সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন।’

মতবিনিময় সভায় অংশ নেন- সিনিয়র সাংবাদিক রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ, দৈনিক প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান, মানবজমিনের প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী, নিউএজ সম্পাদক নূরুল কবীর, আমাদের নতুন সময় সম্পাদক নাঈমুল ইসলাম খান, সাপ্তাহিক সম্পাদক গোলাম মোর্তোজা, সাপ্তাহিক বুধবার সম্পাদক আমির খসরু, ঢাকা ট্রিবিউন সম্পাদক জাফর সোবহান, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফর ডটকমের প্রধান তৌফিক ইমরোজ খালিদী, দিনকাল সম্পাদক রেজোয়ান সিদ্দিকী, ইনকিলাবের যুগ্ম-সম্পাদক মুন্সি আবদুল মান্নান, এএফপি’র ব্যুরো চিফ শফিকুল আলম, রয়টার্স’র সিরাজুল ইসলাম কাদির, ডেইলি স্টারের প্লানিং এডিটর সাখাওয়াত লিটন, যুগান্তরের প্রধান প্রতিবেদক মাসুদ করিম, বাংলাদেশ প্রতিদিনের যুগ্ম-বার্তা সম্পাদক আবু তাহের, বাংলাদেশের খবরের ব্যবস্থাপনা সম্পাদক সৈয়দ মেজবাহ উদ্দিন, সমকালের চিফ রিপোর্টার লোটন একরাম প্রমুখ।

আর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন, বিএনপি মহাসচিব ও ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, জেএসডি সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, ঐক্যফ্রন্ট নেতা সুলতান মোহাম্মদ মনসুর, গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু, বিএনপির বিশেষ সম্পাদক আসাদুজ্জামান রিপন, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।