ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৯:১২

‘রাশিয়া ও সৌদি আরব ওপেক বিমানটি বিধ্বস্ত করেছে’

9141_666.jpg
কাতারের জ্বালানীমন্ত্রী সা’দ আল-কা’বি ওপেক থেকে তার দেশের বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন
রাশিয়া ও সৌদি আরব তেলের উৎপাদন উল্লেখযোগ্য মাত্রায় বাড়িয়ে দিয়ে কাতারকে হতাশ করেছে বলে মন্তব্য করেছে ইরান। তেল রপ্তানিকারক দেশগুলোর সংস্থা- ওপেক থেকে কাতার নিজের বেরিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করার পর এক তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় একথা বলেছে তেহরান।

কাতার গত সোমবার ঘোষণা করেছে, আগামী মাসে দেশটি ওপেক থেকে বেরিয়ে যাবে। গতমাসে কাতার ছয় লাখ ১০ হাজার ব্যারেল তেল উত্তোলন করেছিল যা ওপেকের মোট উৎপাদনের শতকরা দুই ভাগ।

ওপেকে নিযুক্ত ইরানের প্রতিনিধি হোসেইন কাজেমপুর আরদেবিলি এ সম্পর্কে বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, “কাতার হতাশ হয়ে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে এবং আমরা এই হতাশা উপলব্ধি করি। ওপেকের বহু সদস্য সৌদি আরব ও রাশিয়ার পক্ষ থেকে তেল উৎপাদন বৃদ্ধির সিদ্ধান্তে হতাশ হয়েছে। ওই দুই দেশ গত মে মাস থেকে উল্লেখযোগ্য মাত্রায় তেলের উৎপাদন বাড়িয়ে দিয়ে তেলের দাম ব্যারেলপ্রতি ৩০ ডলার কমিয়ে দিয়েছে।”

ইরানের প্রতিনিধি বলেন, এখন রাশিয়া ও সৌদি আরব তেলের দাম বাড়ানোর জন্য ওপেকের বাকি সদস্যদের তেলের উৎপাদন কমাতে বলছে। আরদেবিলি বলেন, যারা অতিরিক্ত তেল উত্তোলন করছে কমাতে হলে তাদের কমানো উচিত। ওপেকভুক্ত ও ওপেকের বাইরের তেল রপ্তানিকারক ২৫ দেশই মস্কো ও রিয়াদের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

ওপেকে ইরানের প্রতিনিধি আরো বলেন, পাইলট ও কো-পাইলট (রাশিয়া ও সৌদি) ওপেক নামক বিমানটি ভূপাতিত করে দিয়েছে এবং এর ২৫ আরোহীর সবাই এখন সংকটজনক অবস্থায় রয়েছে।