ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG

সিটি করপোরেশন নির্বাচন

খুলনা প্রতিনিধি

৩ মে ২০১৮, ১৪:০৫

মঞ্জুর ইউটার্ন

60_bbb.jpg
খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেছেন, শত অত্যাচার-নির্যাতন সত্ত্বেও বিএনপি নির্বাচন থেকে সরে যাবে না। এই শহরের জনগণ বিএনপির পাশে আছে। আর সরকারি দলের পাশে রয়েছে পুলিশ-সন্ত্রাসী ও কালো টাকা। তারপরও কোনও অবস্থাতেই আমরা নির্বাচনী বিজয় ছিনিয়ে নিতে দেব না।

বৃহস্পতিবার দুপুরে দলীয় কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ কথা বলেন তিনি।

এর আগে সকালে দলীয় নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের প্রতিবাদে নির্বাচনী কার্যক্রম স্থগিত ঘোষণা করেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু। এছাড়া গ্রেফতারদের না ছাড়া পর্যন্ত বিএনপির নির্বাচনী কার্যক্রম বন্ধ থাকবে বলেও জানিয়েছিলেন তিনি।

মঞ্জু অভিযোগ করে বলেন, বুধবার সারা রাত পুলিশ বিএনপির নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাণ্ডব চালিয়েছে। বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান মুরাদ ও যুবদল নেতা মাহবুব হাসান পিয়ারুসহ ২১ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে। সারা রাত আমাদের নেতাকর্মীরা নির্ঘুম কাটিয়েছেন। আমি রাতেই রিটার্নিং অফিসার ও পুলিশ কমিশনারকে ফোন দিয়েছি। কিন্তু কেউ আমার ফোন ধরেনি। ভয়ার্তভাবে আমার নেতাকর্মীরা বৃহস্পতিবার ভোরে আমার বাড়িতে এসেছে। আমি তাদের বলেছি, আমরা কোনও অবস্থাতেই নির্বাচন থেকে সরে যাব না। এই শহরের মানুষ আমাদের সঙ্গে আছে।

তিনি বলেন, বিএনপির নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে আতঙ্ক ছড়ানো হচ্ছে যেন ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা মাঠে না থাকতে পারে। গতকালই আমরা রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ দিয়েছি। কিন্তু তারা কোনও ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। তফসিল ঘোষণার পর সবকিছু পরিচালনা হয় নির্বাচন কমিশনের অধীনে। কিন্তু এখানে তা হচ্ছে না। আগামী ৬ মে প্রধান নির্বাচন কমিশনার খুলনায় আসবেন। তিনি আসার আগে যদি এসব অভিযোগের নিষ্পত্তি করে আসেন তাহলে তার বৈঠক বর্জন করা ছাড়া কোনো উপায় থাকবে না।

তিনি বলেন, আমরা মানুষের ভাষা বুঝতে পেরেছি। জনগণ ধানের শীষে ভোট দেয়ার জন্য উন্মুখ হয়ে আছে। নির্বাচনে উৎসবমুখর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। গত ৩০-৩৫ বছরে এই শহরে অংশ গ্রহণমূলক কোনও নির্বাচনে বিএনপি পরাজিত হয়নি। এবারও তার ব্যতিক্রম হবে না।

এসময় উপস্থিত ছিলেন ২০ দলীয় জোটের প্রধান নির্বাচন সমন্বয়কারী বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায় চৌধুরী, মশিউর রহমান, ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, আহসান হাবিব লিংকন, খন্দকার লুৎফর রহমান, মো. গোলাম মোস্তফা ভূইয়া, মূফতি মুহিউদ্দিন একরাম, অ্যাডভোকেট শফিকুল আলম মনা ও সাহারুজ্জামান মোর্তজা প্রমূখ।